29 C
Dhaka
Wednesday, October 28, 2020
Home Business & Fashion Retail বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্র্যান্ড , পর্ব-১ | Bangladeshi Fashion Brand, Part-1

বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্র্যান্ড , পর্ব-১ | Bangladeshi Fashion Brand, Part-1

পোশাকের চাহিদা বাংলাদেশের বরাবরের মতোই অন্যতম। বেশিরভাগ বাংলাদেশীরা এখন নিজেদের পরিধানের পোশাকের ডিজাইন ও গুনাগুত মান নিয়ে যথেষ্ট সচেতন। আর এই চাহিদা পূরন করার জন্য বাংলাদেশের অনেক ডিজাইনার ব্যাক্তিগতভাবে নিজস্ব বুটিক,ফ্যাশন হাউস প্রতিষ্ঠা করেছেন। বর্তমানে বাংলাদেশে এসব ফ্যাশন হাউসগুলোতে পোশাক তৈরির সাথে নিত্যনতুন ফ্যাশন এর অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে মানসম্মত এবং অভিজাত পোশাক তৈরী হচ্ছে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে অত্যাধুনিক ডিজাইন এবং গুনগুন মান ইত্যাদি বিষয়গুলো সামনে রেখে কিছু ফ্যাশন হাউস প্রতিষ্ঠা হয়েছিল যা এখন হয়ে উঠেছে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় ফ্যাশন ব্র্যান্ড।

বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্র্যান্ড শীর্ষক আর্টিকেল এর আজকের এই প্রথম পর্বে বাংলাদেশ এর শীর্ষ স্থানীয় ৪ টি ফ্যাশন ব্র্যান্ড আড়ং, ক্যাটস আই, ইয়েলো এবং রিচম্যান নিয়ে আলোচনা করা হবে।

AARONG (আড়ং)

আড়ং বাংলাদেশের খুবই জনপ্রিয় একটি ফ্যাশন ব্র্যান্ড।এটি অলাভজনক মালিকানাধীন উন্নয়ন সংস্থা ব্রাক -এর একটি প্রতিষ্ঠান। ১৯৭৮ সালে আড়ং এর যাত্রা শুরু হয় যার প্রতিষ্ঠাতা আয়েশা আবেদ এবং মার্থা চ্যান।

১৯৭৬ সালের দিকে দারিদ্র্য বিমোচন ও গ্রামীন নারীদের কর্মসংস্থানের জন্য তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে বিভিন্ন হস্তশিল্পের পন্য দেশে তৈরি হত। যা বিক্রয় করা হত স্বল্প মূল্যে এবং কখনো কখনো কারিগররা তাদের ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হতেন।সেই প্রেক্ষাপট কে বিবেচনা করেই দারিদ্র্য বিমোচন, নারীদের কর্মসংস্থান এবং দেশের হস্তশিল্প ও কারুশিল্প কে বাচিয়ে রাখতে আড়ং এখন সর্বদা কাজ করে চলছে।

আড়ং এর পন্য তৈরির সবচেয়ে আর্কষনীয় ব্যাপারটি হলো যে আড়ংয়ের পন্যগুলো একটি বা দুটি বড় কারখানায় তৈরি হয় না।বাংলাদেশের গ্রামে-গঞ্জের বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে তৈরি হয়।আবার পোশাকের ধরনের ওপর নির্ভর করে নরসিংদী, চাঁপাইনবাবগঞ্জ,বগুড়া সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় আড়ং এর পন্য তৈরি হয়।

আড়ং এর পন্য গুলো হলঃ
• সালোয়ার কামিজ
• কুর্তি
• পাঞ্জাবি
• শার্ট
• গহনা
• গৃহস্থলী সামগ্রী
• শাড়ি
• স্কার্ফ
• ফতুয়া
• ব্যাগ
• হস্তশিল্প
• নকশিকাঁথা ইত্যাদি

বর্তমানে ঢাকা,চট্টগ্রাম সহ বাংলাদেশের ৮ টি শহরে মোট ২১ টি শাখা রয়েছে। আড়ং একটি স্বাধীন সমবায় প্রতিষ্ঠান।দেশীয় পন্য তৈরির পাশাপাশি কাপড়ের গুনাগুন নিশ্চিতে আড়ং আজ সকলের পছন্দের শীর্ষে!!

CAT’S EYE (ক্যাটস আই)

ক্যাটস আই বাংলাদেশের অন্যতম একটি ফ্যাশন হাউস।এটি অনন্য এবং ট্রেন্ড সেটিং ফ্যাশনের জন্য জনপ্রিয়। ১৯৮০ সালে সৈয়দ সিদ্দিকি রুমি এবং আসরাফুল সিদ্দিকির হাত ধরে হাউসটির পথচলা শুরু।

প্রতিষ্ঠার প্রথমদিকে সিদ্দিকি রুমি ও আসরাফুল সিদ্দিকি নিজেরাই পছন্দনীয় ডিজাইনের ওপর ভিত্তি করে শার্ট বিক্রয় দিয়ে শুরু করেন।ধীরে ধীরে কাপড়ের গুনাগত মান,সাশ্রয়ী মূল্য, এবং যুগাপোযোগী ডিজাইন অল্পসময়ের মধ্যেই ক্রেতা দের নজর কাঁড়ে।যার দরুন ক্যাটস আই আজ দেশের শীর্ষব্র্যান্ড গুলোর একটি।

পোশাক তৈরিতে ম্যানসওয়্যার কে ক্যাটস আই প্রধানত প্রাধান্যদিয়ে থাকলেও বর্তমানে নারীদের পোশাকেও এগিয়ে রয়েছে।

ক্যাটস আই এর পণ্যগুলো হলোঃ
• জিন্স
• স্যুট
• পাঞ্জাবি
• কার্গো প্যান্ট
• সালোয়ার কামিজ
• কুর্তি
• পালাজো প্যান্টস
• টুপি
• জুয়েলারি
• ব্যাগ
• ল্যাগেজ
• স্যু ইত্যাদি

ক্যাটস আই এর পোশাক তৈরিতে জর্জেট,লিলেন,কটন,সিফন ইত্যাদি ফ্যাব্রিক্স ব্যবহার করা হয়ে থাকে।বর্তমানে দেশে এর ৩৫ টিরও বেশি শাখা বিদ্যমান।পুরোপুরি ম্যানসওয়্যার দিয়ে শুরু করে এবং এখনো মূলত ম্যানসওয়্যার ব্র্যান্ডের জন্য জনপ্রিয়তা লাভ করার কারনে পুরুষদের পছন্দের তালিকায় প্রথমেই রয়েছে ক্যাটস আই। অসংখ্য কালেকশন এবং যুক্তিসঙ্গত দামের মধ্যে পুরুষেরা তাদের পছন্দ অনুযায়ী নিজের পোশাক নির্বাচনের সহজেই বেছে নিতে পারেন ক্যাটস আই ব্র্যান্ডটিকে।

YELLOW (ইয়েলো)

ইয়েলো বাংলাদেশের ট্রেন্ডেস্ট ফ্যাশন ব্র্যান্ড।এটি একটি অন্যতম বৃহৎ পোশাক ফ্যাশন ব্র্যান্ড যা ২০০৪ সালে জনাব সালমান এফ রহমান – এর মাধ্যমে যাত্রা শুরু করে ছিল। এটি বেক্সিমকো টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রির একটি শাখা প্রতিষ্ঠান।

এই ফ্যাশন ব্র্যান্ডটি পাঞ্জাবী এবং পুরুষদের শার্টের অনন্য সংগ্রহের জন্য বর্তমানে তরুণ প্রজন্মের মধ্যে খুব জনপ্রিয়। অনন্য ডিজাইন এবং আধুনিক ফ্যাশন প্রবণতা বজায় রাখার ক্ষেত্রে যথেষ্ট সুনাম রয়েছে এটির। পুরানো গ্রাহকদের সর্বদা আকৃষ্ট রাখতে এটি গুনগুন মান বজায় রেখে চলেছে এবং নিত্যনতুন ডিজাইনের পন্য নিয়ে আসছে।এখানে সমস্ত পণ্য বিদেশী এবং স্থানীয় ডিজাইনারদের দ্বারা নকশা করা হয়।

ইয়েলো এর উল্লেখযোগ্য পণ্যগুলো হলঃ
• ওমেন’স টপ’স
• ফরমাল ল’ন
• সালোয়ার কামিজ
• কুর্তি
• ওমেন’স ফ্রক
• জ্যাকেট’স
• স্যুয়েটার
• ক্যজুয়াল প্যান্ট
• ফরমাল শার্ট
• ব্লেজার
• কাবলি
• ফরমাল কোটি

বর্তমানে দেশে ইয়েলো এর ১৫ টির বেশি শাখা রয়েছে এবং তার পাশাপাশি দেশের বাইরে পাকিস্তান (৪ টি),দুবাই,দক্ষিন কোরিয়া,নিউইয়র্ক ও কানাডায় এর আউটলেট রয়েছে!

ইয়েলো নামটি নিজেই এখন বাংলাদেশের একটি স্বতন্ত্র পোশাক ব্র্যান্ডে পরিণত হয়েছে। ব্র্যান্ডটি বিপণনের ক্ষেত্রে কিছু অভিনব কৌশল অনুসরন করে যা তাদের গ্রাহকদের মনে ব্র্যান্ডটির প্রতি ইতিবাচক প্রতিচ্ছবি তৈরি করে।আন্তর্জাতিক মানের ডিজাইন ও কাপড়ের জন্য খুব অল্প সময়ের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে পোশাকপ্রেমিদের মনে।

RICH MAN (রিচম্যান)

রিচম্যান বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় একটি ফ্যাশন ব্র্যান্ড। এই ফ্যাশন ব্র্যান্ডটির প্রতিষ্ঠাতা করেছেন জনাব মোহাম্মদ জুনায়েদ। পুরুষের পোশাকের প্রতি যন্তশীল মনোভাব নিয়ে রিচম্যান প্রতিনিয়তই নতুন ও আধুনিক ডিজাইন পোশাক তৈরি করে চলছে।

বসুন্ধরা সিটি শপিং মার্কেটে একটি শাখা থেকে ব্র্যান্ডটি ফ্যাশন এবং ক্যাজুয়াল ম্যানসওয়্যার দিয়ে যাত্রা শুরু। সাশ্রয়ী মূল্য,ট্রেন্ডি ডিজাইন, অন্যতম মানের পন্য,গ্রাহকদের সাথে সুলভ ও দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক ব্র্যান্ডটিকে দিনে দিনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে।ফলে অতি দ্রুতই দেশের অন্যান্য জায়গায় বিস্তার লাভ করেছে।

রিচম্যান ব্র্যান্ডটির উলেখযোগ্য পন্যঃ
• শার্ট
• পোলো শার্ট
• ফরমাল প্যান্টস
• ক্যাজুয়াল প্যান্টস
• টি-শার্ট
• পাঞ্জাবি
• ডেনিম প্যান্টস
• ব্লেজার
• ওয়্যাচ
• ওয়ালেট
• স্টাইলিশ কো-টি

সাধারণত পুরুষদের প্রায়ই তাদের ফ্যাশন নিয়ে উদাসীন হতে হয় এবং যেকোনো অনুষ্ঠানের জন্য সঠিক পোশাক নির্বাচন কঠিন হয়ে পরে এইক্ষেত্রে রিচম্যান ফ্যাশন বিভিন্ন রং,ফ্যাব্রিকস,ডিজাইন সংগ্রহ নিয়ে সর্বদা প্রস্তুত থাকে।আর এভাবেই প্রথাগত এবং ট্রেন্ডিং পোশাক চয়েজের জন্য সহজেই বেছে নেওয়া যেতে পারে রিচম্যান ব্র্যান্ডটিকে।

বাংলাদেশের ফ্যাশন ব্র্যান্ড শীর্ষক পরবর্তী আর্টিকেলে আরো চারটি দেশীয় ফ্যাশন ব্র্যান্ড নিয়ে আলোচনা হবে, পরবর্তী আর্টিকেল পেতে বুননের সাথে থাকুন।

writer:
Sadiya Rahman
DWMTEC
Campus Ambassador, Bunon

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

নিটারের শিক্ষার্থীদের নাসা স্পেস অ্যাপস চ্যালেঞ্জ জয়

টানা ষষ্ঠবারের মতো বেসিসের তত্ত্বাবধানে এবং বেসিস স্টুডেন্টস ফোরামের সহায়তায় যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় মহাকাশ সংস্থা নাসার উদ্যোগে আঞ্চলিক পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেছে...

লিভিং অর্গানিজম থেকে টেকসই টেক্সটাইলের উদ্ভাবন: পরিবেশ বান্ধব টেক্সটাইলের দিকে অগ্রযাত্রা

টেক্সটাইল শিল্প হল ভোক্তা পণ্য উৎপাদনের বিশ্বের প্রাচীনতম শাখা। এটি একটি বৈচিত্র্যপূর্ণ এবং বৈষম্যময় সেক্টর যেখানে প্রাকৃতিক ও রাসায়নিক ফাইবার (যেমন:...

করোনা প্রতিরোধে গাঁজার মাস্ক!

পরিবেশ দূষণের জন্য বিশ্বজোড়া আন্দোলন চলছে। তবুও পরিবেশ রক্ষায় মানুষ এখনও অনেকটাই সচেতন নয়। এতদিন মানুষই পরিবেশের ক্ষতি করতেন। এবার সেখানেও...

ডুয়েটে মাইক্রোসফট এক্সেল বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,গাজীপুরের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের "ডুয়েট টেক্সটাইল ক্যারিয়ার এন্ড রিসার্চ ক্লাব ( DTCRC) "শিক্ষার্থীদের সফটস্কিল ডেভেলপমেন্টের লক্ষে মাইক্রোসফট...

বাংলাদেশী ফ্যাশন ব্র্যান্ড, পর্ব-০৩ | Bangladeshi Fashion Brand, Part-03

পোশাক শিল্পগুলিতে বাংলাদেশী পোশাক ব্র্যান্ড দ্রুত বর্ধনশীল শিল্পগুলির মধ্যে একটি, যা কয়েক দশকের ব্যবধানে খুব সফলভাবেই প্রসারিত হচ্ছে।ব্র্যান্ড গুলো শুধু যেমন...

STEC এ “টেক্সটাইল প্রিন্টিং ডিজাইন “শীর্ষক সেমিনার

শ্যামলী টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ এ ১৮-০৭-২০২০ তারিখে 'টেক্সটাইল প্রিন্টিং ডিজাইন' শীর্ষক অনলাইন সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। অনলাইন সেমিনারটিতে...

টেক্সটাইল মেশিনগুলি আবিস্কারের সময় | A timeline of textile machinery invention.

প্রাচীন এবং প্রাগৈতিহাসিক সময়কাল ১. ২৮০০ খ্রিস্টপূর্ব - রাশিয়ার কোস্টেনকিতে ব্যবহৃত হয় সেলাই মেশিন।