32 C
Dhaka
Friday, October 22, 2021
Home Business & Fashion সুতার ইতিহাস | History of Thread

সুতার ইতিহাস | History of Thread

সুতা হচ্ছে বুনন প্রক্রিয়ার মূল উপকরন। বস্ত্র উৎপাদনের জন্য একগুচ্ছ তন্তুকে পাক বা মোচড় দিয়ে একত্রে সন্নিবেশ করে যা তৈরি করা হয় তাই সুতা।

সুতার ইতিহাস বলতে সুতা ঠিক কত বছর আগে আবিষ্কার তা সঠিকভাবে কেউ বলতে পারেননি। তবে মেক্সিকোর বিভিন্ন গুহাগুলো সন্ধানকারী বিজ্ঞানীরা সুতার বোল এবং তুলা কাপড়ের টুকরা খুঁজে পেয়েছিলেন যা পরীক্ষা করে প্রমাণিত হয়েছে যে সেগুলো কমপক্ষে ৭,০০০ বছর পুরনো। খ্রিস্টপূর্ব ৩,০০০ বছর পূর্বে পাকিস্তানের সিন্ধু নদী উপত্যকায়, তুলার চাষ করা এবং তা থেকে প্রাপ্ত সুতা ব্যবহার করে কাপড়ে বোনা হত। প্রায় একই সময়ে, মিশরের নীল উপত্যকার আদিবাসীরা সুতার পোশাক তৈরি শুরু করে। আরব ব্যবসায়ীরা সুতা কাপড় ইউরোপে নিয়ে গিয়েছিল।এরই ধারাবাহিকতায়, ১৪৯২ সালে কলম্বাস আমেরিকা আবিষ্কার করার পরে বাহামা দ্বীপপুঞ্জে তুলা গাছ জন্মাতে দেখা যায়।

১৫০০ সালের মধ্যে, সুতা বিশ্বজুড়ে পরিচিত ছিল। ধারণা করা হয় ১৫৫৬ সালে ফ্লোরিডায় এবং ভার্জিনিয়ায় ১৬০৭ সালে তুলার বীজ রোপণ করা হয়েছিল। কলোনিস্টরা ১৬১৬ সালের মধ্যে, ভার্জিনিয়ার জেমস নদীর তীরে তুলা চাষ শুরু করেছিলেন। এরপর, ১৭৩০ সালে ইংল্যান্ডে প্রথমবারের মতো যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে তুলা থেকে সুতা উৎপাদন শুরু হয়েছিল। ইংল্যান্ডে শিল্প বিপ্লব এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে তুলার জিন আবিষ্কারের ফলেই আজ বিশ্ব বাজারে তুলার এত চাহিদা। এলি হুইটনি ১৭৯৩ সালে সুতির জিনের পেটেন্ট আবিষ্কার করেছিলেন। যদিও পেটেন্ট অফিসের রেকর্ড থেকে বোঝা যায় যে হুইটনির পেটেন্ট আবিষ্কারের দু’বছর আগে নোট হোমস নামে একজন মেশিনবিদ প্রথম সুতির জিন তৈরি করেছিলেন। দ্রুত বর্ধনশীল জিন টেক্সটাইল শিল্পকে প্রচুর পরিমাণে সুতি সরবরাহ করা সম্ভব করেছে। ১০ বছরের মধ্যে, মার্কিন তুলা ফসলের মূল্য $১৫০,০০০ থেকে বেড়ে ৮ মিলিয়নেরও বেশি হয়েছে।

এক কথায় বলতে গেলে ফাইবার হতে সুতা উৎপাদনের প্রক্রিয়াকে স্পিনিং প্রসেস বলা হয়। স্পিনিং প্রসেস ও ইয়ার্ন ম‍্যানুফ‍্যাকচারিং বলতে সুতা তৈরির প্রক্রিয়াকেই বোঝানো হয়। শাব্দিক অর্থ ভিন্ন হলেও দুটি প্রায় কাছাকাছি প্রক্রিয়া।টেক্সটাইল এর ভাষায়, যে প্রক্রিয়ার মাধ্যমে টেক্সটাইল ফাইবার দ্বারা প্রক্রিয়াজাতকরণ প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন প্রক্রিয়া দ্বারা টেক্সটাইল ফাইবার বা আঁশ বা তন্তু সমূহকে পেঁচানোর মাধ্যমে প্রান্ত বিহীন নুন‍্যতম শক্তি সম্পন্ন সুতা প্রস্তুত করা হয় তাকে স্পিনিং বা ইয়ার্ন ম‍্যানুফ‍্যাকচারিং বলে।

সুতা তৈরি করতে ফাইবার বা তন্তু সমূহের নুন‍্যতম একটা ল‍্যন্থ এর প্রয়োজন হয়।আমরা জানি তুলা থেকে সুতা তৈরি করা হয়ে থাকে।কিন্তু আমাদের দেশে যে তুলা হয় তা বালিশ বা তোসখ তৈরি ছাড়া আর কোনো কাজে লাগে না।তাই আমাদের বিভিন্ন দেশ থেকে তুলা আমদানি করা লাগে।আমাদের দেশ চীন, মিশর,ভারত, পাকিস্তান, তুর্কি থেকে তুলা আমদানি করে থাকে।প্রস্তুত প্রণালীর উপর নির্ভর করে সুতাকে বিভিন্ন ভাগে ভাগ করা যায়:কার্ডেড,কমবড প্রভৃতি সুতা।তুলা মিক্স সুতা দুই প্রকার তুলা মিক্স করে তৈরি করা হয় যা” মিক্সড সুতা” নামেও পরিচিত।আমরা যে কাপড় ব‍্যবহার করি তার ৯০% এ সুতা দিয়ে তৈরি।

একটি পোশাক তৈরির জন্য যে প্রকারের সুতা ব্যবহার করা হবে,তার উপর নির্ভর করে পোশাকের মান ও সৌন্দর্য্য। বিভিন্ন প্রকারের সুতা রয়েছে তার মধ্যে ফেব্রিকের ধরণ বিবেচনা করে উপযুক্ত সুতাটি বেছে নেয়া হয়।

বিভিন্ন দিক দিয়ে সুতার শ্রেণীবিন্যাস করা যায়।প্রথমেই আসা যাক সুতার উৎস ও প্রকৃতি। প্রাকৃতিক অথবা কৃত্তিম ভিন্ন ভিন্ন উৎস থেকে সুতা সংগৃহীত হতে পারে ।প্রাকৃতিক সুতার শক্তি ও স্থায়িত্ব তুলনামূলক কম, অন্যদিকে কৃত্তিম সুতার স্থায়িত্ব ও আদ্রতা সহ্য করার ক্ষমতা প্রাকৃতিক সুতার তুলনায় অনেক বেশি।
কাচাঁমাল বা মূল উপাদানের উপর নির্ভর করে ও সুতা বিভিন্ন ধরনের হতে পারে:কটন,পলিস্টার,আক্রাই-লিক,ভিসকস,লিনেন,পলিভিনাইল,রেয়ন,উল,সিল্ক সুতা।

প্রথমত, অনেক প্রাচীনকাল থেকে শেলাইয়ে “লিনেন সুতা” এর ব্যবহার হয়ে আসছে।এক সময় প্রচুর পরিমাণে ব্যাবহৃত হলেও বর্তমানে পলিয়েস্টার সুতার সর্বগ্রাসী প্রভাবে লিনেন সুতার ব্যাবহার প্রায় হয় না বললেই চলে।সিল্কের সুতা বেশ শক্তিশালী,সম্প্রসারনশীল ও চাকচিক্যপূর্ণ।”সিল্ক “সাধারণত কন্টিনিউয়াস ফিলামেন্ট হয় তবে ব্রোকেন ফিলামেন্টও হতে পারে।দুই প্রকৃতির ফিলামেন্ট থেকেই সুতা প্রস্তুত করা যায়।সিল্কের সুতা ব্যয়বহুল হওয়ায় এর ব্যাবহার সীমিত।এছাড়া,ইয়ারনের মতই সুতার ক্ষেত্রেও তুলা সবচেয়ে বেশি ব্যাবহৃত প্রাকৃতিক ফাইবার।তবে সুতায় অবশ্যই ১০০% তুলার নির্মিত হয়।আবার,”ভিসকস “সুতা তৈরি হয় কন্টিনিউয়াস ফিলামেন্ট বা স্টাপল ফাইবার থেকে যাদের রিনেরেটেড সেলুলোজ পলিমার থেকে পাওয়া যায় ।এদের শক্তি ও স্থায়িত্ব তুলনামূলক কম হলেও চাকচিক্যের জন্য অ্যাম্রডারিতে ভিসকস সুতা বেশি ব্যাবহৃত হয়।”পলিয়েস্টার” সুতা তৈরি হয় পলিয়েস্টার ফাইবার থেকে, বেশ শক্তিশালী ও প্রয়োজনমত প্রসারিত হতে পারে।এছাড়া এটি খুব সস্তা ,রঙ ধরে রাখার ক্ষমতাও অনেক বেশি,তাই ব্যবহারের দিক থেকে অন্য সব সুতা থেকে পলিয়েস্টার এগিয়ে।

“নাইলন “সুতার ক্ষেত্রে নাইলনের সম্প্রসারনশীলতা অনেক বেশি হওয়ার কারণে কাপড় সেলাইয়ে এর ব্যবহার খুবই কম।কারন সম্প্রসারনশীল সুতা ব্যাবহার করলে সেলাইয়ের পরে যখন সুতা সংকুচিত হবে তখন ছিমের জায়গাটিও সঙ্কুচিত হতে শুরু করবে যাতে তৈরি পোশাকের বিভিন্ন অংশ কুচকে গিয়ে সৌন্দর্য্য নষ্ট হবে।এছাড়াও রয়েছে “এরামাইড সুতা” যা খুব ব্যয়বহুল ।শুধুমাত্র বিশেষ বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয় যেমন আগুণ প্রতিরোধী পোশাক তৈরিতে।এছাড়াও,প্রতিকুল পরিবেশে আত্মরক্ষার জন্য তৈরি বিশেষ ক্ষমতাসম্পন্ন পোশাক যেমন যেসব পোশাক কোন শিখার সামনে বিগলিত হয় না এবং ক্ষতিকর কেমিক্যালের প্রতিক্রিয়া সহ্য করতে পারে এমন সব পোশাক তৈরিতে” পি টি এফ ই”সুতার ব্যবহার হয়ে থাকে।

বস্ত্র উৎপাদনকে যদি শরীর কল্পনা করা হয়, সুঁতাকে এর মেরুদণ্ড বলা যেতে পারে।

Writer:
Abir Mohammad Sadi
BUTEX
Campus Ambassador, Bunon

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে পিসিআইইউ ভলেন্টিয়ার্সের এর উদ্যেগ Skill for Career Progression (SCP)

পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির অন্যতম বৃহৎ সংগঠন "PCIU Volunteers" আয়োজন করতে যাচ্ছে কর্পোরেট দক্ষতা বিষয়ক প্রোগ্রাম "Skill for Career Progression" (SCP)।

“প্রতিটি ধাপে তোমার যোগ্যতাই তোমাকে এগিয়ে নিয়ে যাবে” – সালাউদ্দিন

সম্পাদকীয়ঃ লেখক- জনাব সালাউদ্দিন হেড অফ অপারেশন, বুনন চেয়ারম্যান, আস্ক এপারেল এন্ড টেক্সটাইল সোর্সিং লিমিটেড সদ্য টেক্সটাইল পাশ করা অনেক টেক্সটাইল...

এওপিটিবি’র মিলনমেলা

সমগ্র বাংলাদেশের অল ওভার প্রিন্টিং সেক্টর নিয়ে কাজ করা সকল ইঞ্জিনিয়ার ও টেকনোলজিস্টদের প্রাণের সংগঠন “অল ওভার প্রিন্টিং টেকনোলজিস্টস অব বাংলাদেশ”।সংগঠনটির...

ভিয়েতনামের বিকল্প খুজঁছে বিশ্বের বিভিন্ন খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান

সাধারনত যে সকল খুচরা বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানগুলো জুতা ও পোশাকের জন্য ভিয়েতনামের কারখানাগুলোর ওপর নির্ভরশীল তারা ভিয়েতনামের বিধিনিষেধের ব্যাপারে খুবই চিন্তিত। যদিও...

টেক্সটাইল সেক্টরকে টিকিয়ে রাখতে বহিঃবিশ্বের ফান্ডিং জরুরী

স্বল্পমূল্যের অর্ডার আসছে টেক্সটাইল খাতে। এ যেনো এক কঠিন পরীক্ষার সম্মুখীন দেশের টেক্সটাইল খাত। বার বার মুখ থুবড়ে পড়ার উপক্রম। দেশকে...

বাংলাদেশে তুলা উৎপাদন ও এর সম্ভাবনা | Possibility of Cotton Cultivation in Bangladesh

মানুষের মৌলিক চাহিদাগুলো হলো খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা ও শিক্ষা। সভ্যতার দিক থেকে বিবেচনায় বস্ত্রই হচ্ছে আমাদের প্রথম মৌলিক চাহিদা। এই...

পোশাক প্রযুক্তিতে পানিহীন ডাইং

টেক্সটাইল জগতে পানির বিকল্প অসম্ভব । আর ডাইং এর ক্ষেত্রে পানি শূন্য হলো জল ছাড়া মাছের মতো। কিন্তু সত্যিই কি তাই...