16 C
Dhaka
Thursday, January 28, 2021
Home Business & Fashion Innovation সোনালী ব্যাগ

সোনালী ব্যাগ

সোনালী ব্যাগ হলো পাট থেকে উদ্ভাবিত এক ধরনের পলিথিন ব্যাগ।পাট থেকে পলিথিন ব্যাগ উৎপাদনের এই প্রক্রিয়াটি আবিষ্কার করেছেন বাংলাদেশী বিজ্ঞানী মোবারক আহমদ খান। এটি একটি সেলুলোজ-ভিত্তিক বায়োডিগ্রেডেবল বায়োপ্লাস্টিক, যা প্লাস্টিক ব্যাগের একটি সুন্দর  বিকল্প।

ড. মোবারক আহমেদ খানের উদ্ভাবিত পাটের তৈরি পলিথিন।

পাট থেকে সেলুলোজ আহরণ করে প্রক্রিয়াজাত করে তৈরি করা হয় সিট এবং তা থেকেই তৈরি হয় ব্যাগ এবং এর উদ্ভাবক মোবারক আহমদ খান দাবি করেছেন, পাট থেকে তৈরি পলিথিন ব্যাগ প্রচলিত পলিথিনের তৈরি ব্যাগের চেয়ে অধিক কার্যকর। এ পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করার পর ফেলে দিলে যেমনি সহজেই মাটির সঙ্গে মিশে যেতে পারে, তেমনি মাটিতে সার হিসেবেও কাজ করে থাকে।  সহজলভ্য উপাদন এবং সাধারণ প্রযুক্তি ব্যবহার করে তৈরি এ পলিথিন ব্যাগ বিদেশে রফতানির ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। ইতোমধ্যে অস্ট্রেলিয়া, জাপান, আরব আমিরাতসহ কয়েকটি দেশ সোনালী ব্যাগ আমদানির আগ্রহ প্রকাশ করেছে। প্রাথমিক পর্যায়ে মোবারক আহমদ খান  জানিয়েছেন, প্রাথমিক উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারিত হয়েছে দৈনিক ৩ টন। সরকারীভাবে এ ব্যাগ উৎপাদন হলেও বাণিজ্যিকভাবে এর উৎপাদনের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। পাটকলগুলোতেই এর উৎপাদন হতে পারে। তাছাড়া কেউ চাইলে  ক্ষুদ্র পরিসরে এর কারখানা স্থাপন করতে পারে। মানে উদ্দ্যেক্তাদের জন্যও পাটের তৈরি ব্যাগ হতে পারে আশার বাণী।  স্বল্প পরিমাণে সোনালী ব্যাগ উৎপাদিত হওয়ায় এর বিপনন এখনো সীমিত। প্রতি ব্যাগের দাম ৩ থেকে ৪ টাকা। অধিক পরিমাণ উৎপাদিত হলে দাম প্রতি পিসের জন্য ৫০ পয়সায় নামিয়ে আনা সম্ভব বলে পাট গবেষণা ইন্সটিটিউটের কর্মকর্তারা মনে করেন। বলার অপেক্ষা রাখেনা, সোনালী ব্যাগ প্রচলিত পলিথিন ব্যাগের বিকল্প হতে পারে। প্রচলিত ‘অক্ষয়’ পলিথিন ব্যাগের কারণে পরিবেশ দূষণ, ভূমির উর্বরতাশক্তি হ্রাস, নদনদী ভরাট, শহরে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি ইত্যাদি থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব যদি সোনালী ব্যাগ প্রয়োজন মত উৎপাদন, বাজারজাত ও ব্যবহার নিশ্চিতকরণ সম্ভবপর হয়। এর ফলে পাটের অর্থনীতিও অনিবার্যভাবে চাঙ্গা হয়ে উঠতে পারে এবং দেশীয় পাটের ক্রমেই ম্লান হয়ে  যাওয়া গৌরব ফিরে আসতে পারে। 

যে পলিথিন ব্যাগ আমরা বাজারে দেখতে পাই, তার বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয় ১৯৮২ সালে। কিন্তু যে ইথাইলিন (মলিকিউলাস) থেকে পলিথিন বা পলিথাইলিন উৎপাদিত হয় তা পরিবেশের জন্য ভয়ংকর ক্ষতিকারক। এ পলিথিন ব্যাগ কোনোভাবেই এমনকি পুড়িয়েও ধ্বংস করা যায় না। ফলে জমিতে, পানিতে, ড্রেনে যেখানেই ফেলা হোক না কেন, তা অক্ষত অবস্থায় থাকে ও পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি করে থাকে । বিশেষজ্ঞদের মতে, জমিতে এই পলিথিন ব্যাগ পড়ার কারণে জমির ফসল উৎপাদন ক্ষমতা হ্রাস পাচ্ছে। নদনদী ও জলাশায়ে পতিত হওয়ার ফলে সেগুলোর বুক ভরাট হয়ে যাচ্ছে। অন্যদিকে রাজধানীসহ বড় শহরগুলোর জলাবদ্ধতার সে সংকট, তার পেছনেও রয়েছে এই পলিথিন ব্যাগ।  শুধু তাই নয়, ভূপৃষ্ঠকে উত্তপ্ত করে তোলার পেছনে এর বড় ধরনের ভূমিকা রয়েছে। ভূমিকল্প, বজ্রপাত, আট্রাভায়োলেট রেডিয়েশন ইত্যাদির জন্যও এই পলিথিনের বিশেষ ভূমিকা রয়েছে। পলিথিন বা পলিথিন ব্যাগের এই পরিবেশ বিপর্যয়কর নানামুখী প্রতিক্রিয়ার কারণে ২০০২ সালে পলিথিন ব্যাগের উৎপাদন ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়। এর বদলে পাটের, কাগজের ও কাপড়ের ব্যাগ ব্যবহার করার কথা বলা হয়। কিন্তু পরিতাপের বিষয় এইযে একদিকে যেমন পলিথিন ব্যাগের উৎপাদন ও ব্যবহার বন্ধ হয়নি, তেমনি বিকল্প ব্যাগের ব্যবহারও তেমনভাবে বাড়েনি। পরিবেশ আন্দোলনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, শুধু ঢাকা শহরেরই প্রতিদিন ১ কোটি ৪০ লাখ পলিথিন ব্যাগ ব্যবহৃত হয়। এ শহরের জলাবদ্ধতার জন্য ৮০ শতাংশ দায়ী এই পলিথিন ব্যাগ। সারাদেশে পলিথিন ব্যাগ কত ব্যবহৃত হয় এবং তার কী ধরনের বিরূপতা পরিবেশ, উৎপাদন ও জীবনযাত্রায় পতিত হয়, তা সহজেই আন্দাজ করা যায়। নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও পলিথিন ব্যাগের উৎপাদন, বাজারজাতকরণ ও ব্যবহার কীভাবে হচ্ছে, সেটা একটা বড় প্রশ্ন। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরদারির অভাব এবং ব্যবস্থা গ্রহণের অক্ষমতাই এজন্য মূলত দায়ী। আরও লক্ষ্য করার বিষয়, বাজারে পলিথিন ব্যাগের উপযুক্ত বিকল্পও যথেষ্ট পরিমাণে নেই। এমতাবস্থায়, সোনালী ব্যাগ সবচেয়ে উপযুক্ত বিকল্প হতে পারে। এক্ষেত্রে,  একদিকে প্রচলিত পলিথিন ব্যাগ উৎপাদন, বাজারজাতকরণ ও ব্যবহার হ্রাসকরণে দ্রুত পদক্ষেপ করতে হবে অন্যদিকে সোনালী ব্যাগের বাণিজ্যিক উৎপাদন, বাজারজাতকরণ ও ব্যবহার জনপ্রিয় করার জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ-পদক্ষেপ নিতে হবে। তাহলে পরিবেশঘাতক পলিথিন ব্যাগের ক্ষতি থেকে রেহাই পাওয়া সম্ভব হতে পারে।

Prime Minister Sheikh Hasina holding polythene made from jute after inaugurating a jute goods fair at Bangabandhu International Conference Centre in the city on Wednesday on the occasion of the National Jute Day-2019 — BSS

পাটের সম্ভাবনা নিয়ে নতুন করে বলার কিছু নেই। উড়োজাহাজ শিল্প, গাড়িশিল্পসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে পাটের ব্যবহার হচ্ছে। পাটের মন্ড থেকে কাগজ তৈরির কথা আমরা অনেকবার শুনেছি। এক সময় বলা হয়েছে, বিশ্বব্যাপী কাগজ তৈরির মন্ডের যে চাহিদা রয়েছে তার ১৫ শতাংশও যদি পাট পুরণ করতে পারে তবে বাংলাদেশের পাট-অর্থনীতি গার্মেন্টর চেয়েও বেশি অবদান রাখতে পারে। আমরা এও জানি, বাংলাদেশেরই এক বিজ্ঞানী পাট থেকে ‘মিহিতন্তু’ আবিষ্কার করেছেন। এই তন্তু হতে পারে তুলাজাত তন্তুর বিকল্প। আবিস্কারকের দাবী, গুণে-মানে তুলাজাত তন্তুর চেয়ে পাটের মিহিতন্তু উত্তম। এ দিয়ে উত্তম কাপড় তৈরি হতে পারে এবং দেশের পাটকলগুলোতে সামান্য প্রযুক্তিগত পরিবর্তন সাধন করে মিহিতন্তু দিয়ে কাপড় উৎপাদন করা সম্ভব। অত্যন্ত দু:খজনক, পাটের মন্ড দিয়ে কাগজ তৈরির কথা যেমন আর শোনা যায় না, তেমনি মিহিতন্তু দিয়ে কাপড় তৈরির কথাও শোনা যায়না, এমনকি দেশের পাটকলগুলোরই নাজেহাল অবস্থা।  আমরা জানিনা, পাটের পলিথিন ব্যাগ তৈরির সম্ভবনাও অবহেলা-উপেক্ষোর শিকার হবে কিনা। পাটকে বলা হয় ‘সোনালী আঁশ’। পাট যে এর চেয়েও অনেক  বড় কিছু। একমাত্র পাটই দেশের অর্থনীতিকে আমূল পরিবর্তন করে দিতে পারে। জনজীবনযাত্রায় আনতে পারে বৈপ্লাবিক পরিবর্তন। এজন্য যে সচেনতা, সঠিক সিদ্ধান্ত ও পরিকল্পনা প্রয়োজন তার অভাব শোচনীয়ভাবে লক্ষ্য করা যায়। পাটের প্রতি এই অবহেলা, উপেক্ষা আমর্জনীয়।দেশীয় পাট, পাটজাত পণ্য ও পাটকলগুলোর যর্থাথ ব্যবহার নিশ্চিত করতে পারলে একদিকে যেমন অনেক মানুষের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা সম্ভবপর হবে, তেমনি দেশের অর্থনীতির চাকাকেও আরও সচল করা যাবে।

Reporter: 
Abir Mohammad Sadi 
BUTEX
Sr.Campus Ambassador, BUNON

15 COMMENTS

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি “ছায়া সংসদ” বির্তক প্রতিযোগিতায় বিজয়ী ওর্য়াল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ।

"করোনা মহামারীর শুরুতে দারিদ্রতা বাড়লেও এখন তা নিয়ন্ত্রনে। সরকারি হিসাবে সার্বিক দারিদ্র্যের হার ২০ থেকে ২২ শতাংশ। কিন্তু করোনা মোকাবিলায় সরকারি...

আড়ং বাংলাদেশের একটি হস্ত ও কারুশিল্প ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান

রিপোর্টারঃ দীপংকর ভদ্র দীপ্তজাতীয় বস্ত্র প্রকৌশল ও গবেষণা ইন্সটিটিউট (নিটার)ক্যাম্পাস এম্বাসেডর, বুনন দেশে দারিদ্র্য বিমোচন ও নারীর...

All Over Printing Technologist of Bangladesh – AOPTB পরিচালনা পর্ষদ এর ভার্চুয়াল মিটিং

ডেস্ক রিপোর্ট, বুনন টেক্সটাইল প্রিন্টিং এর জগতে বর্তমানে অন্যতম চাহিদার শির্ষে রয়েছে অলওভার প্রিন্টিং। বর্তমানে বাংলাদেশের প্রায়...

Rotary এবং Flat Bed মেশিনের পার্থক্য এবং এদের ফাংশন

Md Shawkat Hossain (Sohel) Manager:- CAD Unifill Composite Dyeing Mills Ltd Textile Printing বলতে আমরা যা বুঝি তা হল, এটি...

সার্সটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের পথচলা | Journey of SARSTEC Career Club.

বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, বরিশাল এর ক্যারিয়ার ভিত্তিক সংগঠন সার্সটেক ক্যারিয়ার ক্লাব (SCC)।

বস্ত্রশিল্পে বোতাম | Button in Textile Sector

বোতাম সাধারণত গোল বা অন্যান্য চাকতি আকৃতিরও হতে পারে এমন বস্তু যা বস্ত্র ও ফ্যাশন ডিজাইনে ব্যবহৃত হয়। সচারচর কাপড়ের কোনো...

নাইট অফিসার উপাধি পেলেন এনভয় ও শেলটেক গ্রুপের চেয়ারম্যান কুতুবউদ্দিন আহমেদ

প্রতিবছর স্পেনের রাজা 'অর্ডার অব সিভিল মেরিটে'র আওতায় দেশী ও বিদেশী নাগরিকদের বিভিন্ন খেতাবে সম্মানিত করেন। আলফোনসো অষ্টম স্পেনের রাজা ১৯২৬...