32 C
Dhaka
Sunday, October 25, 2020
Home Fiber To Fabric Fiber তুলা । Cotton

তুলা । Cotton

তুলা একধরনের আঁশ উৎপাদক অর্থকরী ফসল।তুলা আঁশজাতীয় নরম পদার্থবিশেষ যা সংশ্লিষ্ট তুলা গাছের বীজের সাথে সম্পৃক্ত থাকে। তুলা দেখতে সাদা, লম্বা, পাতলা ও চুলের ন্যায় মিহি। প্রাচীনকাল থেকেই বাংলাদেশ ছিল তুলা চাষের জন্য প্রসিদ্ধ। ঢাকা জেলার তুলা ছিল সর্বোৎকৃষ্ট। এ তুলার সুতা থেকেই তৈরি হতো ঢাকাই মসলিন।তুলা সাধারণত ক্রান্তীয় ও উপ-ক্রান্তীয় অঞ্চলে ভাল জন্মে। ৪০° উত্তর অক্ষাংশ থেকে ২০° দক্ষিণ অক্ষাংশে অবস্থিত অঞ্চলে তুলার চাষ বেশি হয়। সমতল বা ঢালু জমি তুলা চাষের উপযোগী। তুলা চাষের জন্য উর্বর দো-অাঁশ মাটি প্রয়োজন। প্রাথমিক পর্যায়ে তাপ ও পর্যাপ্ত বৃষ্টিপাত উভয়ই প্রয়োজন হয়। তুলার বোল বের হলে আর্দ্র ও শুষ্ক রৌদ্রোজ্জ্বল আবহাওয়ার প্রয়োজন। সামুদ্রিক আবহাওয়া তুলা চাষের সহায়ক। তুলা লাগানোর সময় জুলাই মাসের মাঝামাঝি আর ফসল তোলা হয় শেষ মধ্য-জানুয়ারিতে। বাংলাদেশে প্রায় ১১,৭৬৩ হেক্টর জমিতে মেঠো-তুলার চাষ হয়। দেশে বার্ষিক উৎপন্ন তুলার পরিমাণ প্রায় ২১,২৯৫ মে টন যা অভ্যন্তরীণ চাহিদার মাত্র ১৬% মেটায়।প্রাচীনকাল থেকেই চীন, ভারত ও মিশরে তুলার ব্যবহার হয়ে আসছে। বিশ্বের প্রায় ৫০ শতাংশ তুলা বস্ত্র তৈরির জন্য ব্যবহূত হয়। বাকি ২৫ শতাংশ কার্পেট, পর্দা, গৃহস্থালির রকমারি জিনিস তৈরির জন্য এবং অবশিষ্ট তুলা শিল্পের বিভিন্ন কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে।

তুলা গাছ থেকে সংগ্রহ করে সুতা, বালিশ, চিকিৎসা কর্মে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে একত্রিত করা হয়। তৈরীকৃত সুতা দিয়ে কাপড় প্রস্তুত করে মানুষের পোষাকসহ অনেক ধরনের জিনিসপত্রে ব্যবহার করা হয়। প্রচণ্ড গরমে সুতি কাপড় পরিধানে বেশ আরাম অনুভূত হয়। খুবই হাল্কা বিধায় খুব সহজেই তুলা অনেক দূরে বাতাসের সাহায্যে স্বাধীনভাবে উড়ে যায়। এর ফলে প্রাকৃতিকভাবেই নিজের বংশবিস্তারে সক্ষমতা রয়েছে এটির। অনেক পূর্বেই মানুষ তুলার নরম, তুলতুলে অবস্থার সাথে পরিচিত হয়েছে এবং বস্ত্রখাতে একে সম্পৃক্ত করেছে। খুব দ্রুত বর্ধনশীল গাছ হিসেবে তুলা গাছের সুনাম রয়েছে।চাষাবাদকৃত তুলাগাছ থেকে পেকে যাবার পূর্বেই বীজ সংগ্রহ করতে হয়। সংগৃহীত তুলার সাহায্যে সুতা প্রস্তুত করলেও তা তেমন টেকসই নয়; কিন্তু কয়েকটি সুতা একত্রিত করলে তা খুবই শক্ত ও মজবুত আকৃতি ধারন করে। বাজারজাতকরণের জন্য প্রয়োজনে ঐ সুতায় বিভিন্ন ধরনের রঙ দেয়া হয়।

অনেক অনেক বছর পূর্বে তুলার আবিস্কার হয়েছে। তুলা মানব সভ্যতার ইতিহাসে প্রাচীনতম ফসলরূপে পরিগণিত হয়ে থাকে। প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনসমূহ থেকে প্রাপ্ত তথ্য মোতাবেক জানা যায় যে প্রায় সাত হাজার বছর পূর্বে তুলার ব্যবহার শুরু হয়। বর্তমানে প্রাকৃতিক তন্তুু হিসেবে এর ব্যবহার অব্যাহত আছে। পৃথিবীর সকল দেশের, সকল শ্রেণীর মানুষ তুলা দিয়ে তৈরী কাপড় ও তুলাজাত অন্যান্য পণ্য ব্যবহার করে আসছেন।তুলা প্রাকৃতিক তন্তু হিসেবে তুলা গাছ থেকে পাওয়া যায়। কয়েক ধরনের তুলা গাছ প্রকৃতিতে পাওয়া যায়। তন্মধ্যে গুল্মজাতীয় কিছু তুলা গাছ বুনো পরিবেশে বিশ্বব্যাপী গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ও উপ-গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকাসমূহে জন্মায়। বুনো প্রজাতির বেশীরভাগ তুলা গাছই অস্ট্রেলিয়া এবং আফ্রিকা মহাদেশের পর মেক্সিকোতে উৎপন্ন হয়।অধিকাংশ তুলাই অর্থকরী ফসলরূপে জমিতে উৎপাদন করা হয় যা পরবর্তীতে কাপড় তৈরীর উদ্দেশ্যে জমায়েত করা হয়। তুলার খামারগুলো আফ্রিকা, এশিয়া, ইউরোপ, অস্ট্রেলিয়াসহ আমেরিকায় দেখা যায়। বিশ্বব্যাপী হাজার হাজার একর জমি তুলা চাষে ব্যবহার করা হচ্ছে। প্রাচীন ইতিহাসের ক্ষণস্থায়ী, মোটা কাপড়ের তুলনায় নিত্য-নতুন প্রজাতির তুলা গাছের মাধ্যমে আধুনিক বিশ্বের উপযোগী দীর্ঘস্থায়িত্ব, মসৃণ কাপড় তৈরী হচ্ছে। তুলার নিজস্ব ওজন নিয়ে ২৪ থেকে ২৭ গুণ পানি ধারণ করতে পারে। তুলা গাছের সকল অংশই কোন না কোন কাজে লাগে।তুলা বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক তন্তু। ২০০৭ সালে এর বিশ্বব্যাপী ফলন ছিল ২৫ মিলিয়ন টন, যা ৫০ টিরও অধিক দেশে ৩৫ মিলিয়ন হেক্টর জমিতে চাষাবাদ করা হয়েছিল।এর প্রক্রিয়াকরণ এর ছয়টি ধাপ আছে, যথা :চাষাবাদ এবং ফসল সংগ্রহ,প্রস্তুতিমূলক প্রক্রিয়া,বুনন বা বয়ন কর্ম,স্পিনিং,সমাপ্তিকরণ এবং বাজারজাতকরণ।

বর্তমানে তুলার বৈশ্বিক উৎপাদন বার্ষিক ২৫ মিলিয়ন টনেরও বেশি যা বিশ্বের তুলা আবাদের উপযোগী ভূমির মাত্র আড়াই শতাংশ ব্যবহারে উৎপাদিত। ২০০৯ সালের তথ্য মোতাবেক, চীন বিশ্বের সর্ববৃহৎ তুলা উৎপাদনকারী দেশের মর্যাদা পেয়েছে। এরপরই রয়েছে ভারত। দেশ দু’টি যথাক্রমে ৩৪ মিলিয়ন বেল ও ২৪ মিলিয়ন বেল তুলা উৎপাদন করেছে। কিন্তু উৎপাদিত তুলার অধিকাংশই অভ্যন্তরীণ শিল্প-প্রতিষ্ঠানে ব্যবহার করা হয়। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র অনেক বছর যাবৎ সর্ববৃহৎ রপ্তানীকারক দেশ হিসেবে পরিগণিত। দেশটি ৪.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার উপার্জন করেছিল। আফ্রিকা মহাদেশ থেকে ২.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার তুলা রপ্তানী করে। ১৯৮০ সাল থেকে আফ্রিকা তুলা বাণিজ্যে দ্বিগুণ অংশগ্রহণ করে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ৫টি তুলা রপ্তানীকারক দেশগুলো হচ্ছে – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, ব্রাজিল, অস্ট্রেলিয়া এবং উজবেকিস্তান। তুলা উৎপাদনবিহীন আমদানকারীকারক দেশগুলো হচ্ছে – কোরিয়া, তাইওয়ান, রাশিয়া, হংকং এবং জাপান।

বাংলাদেশে দুই ধরনের তুলা চাষ করা হয়। সমতল এলাকার ৭টি জোনে সমভূমির তুলা বা আপল্যান্ড কটন এবং পার্বত্য এলাকার ২টি জোনে পাহাড়ি তুলার চাষ করা হয়। পাহাড়ি তুলা এপ্রিল-মে মাসে এবং সমভূমির তুলা জুলাই-আগস্ট মাসে বপন করা হয়। পাহাড়ি তুলা ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে এবং সমভূমির তুলা জানুয়ারি-মার্চ মাসে উত্তোলন করা হয়।

পোশাক উৎপাদন একটি গুরুত্বপূর্ণ শিল্প। এ শিল্প তন্তু কে সুতা এবং সুতা কে ফ্যাব্রিকে রুপান্তর করার ওপর ভিত্তি করে গঠিত। এদেরকে অতঃপর ডাই করে বা মুদ্রণ, বুননের মাধ্যমে বস্ত্র তৈরি করা হয়। সুতা তৈরিতে বিভিন্ন প্রকারের তন্তু ব্যবহার করা হয়। তুলা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রাকৃতিক তন্তু হিসেবে অবস্থান করায়, একে ব্যাপক গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করা হয়। স্পিনিং ও ফ্যাব্রিক-গঠনের পর্যায়ের সাথে বিশাল পরিসরের দ্রব্য উৎপাদনের সমাপ্তিকরণ এবং রঙকরণ প্রক্রিয়ার জটিলতার জন্য বিভিন্ন পরিবর্তনশীল প্রক্রিয়া পাওয়া যায়।

আমাদের দেশের রপ্তানি আয়ের শতকরা ৮৪ শতাংশ আসে বস্ত্র খাত থেকে। কিন্তুু,এইখাতের অবদান আরও বৃদ্ধি করা সম্ভব যদি দেশেই উন্নত মানের তুলা উৎপাদন সম্ভব হয়।বস্তুুত, প্রত্যেকটি টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রির শতকরা ৪০ ভাগ অর্থ ব্যয় হয় ব্যাক-ওয়ার্ড লিংকেজের পিছনে তথা কাঁচামাল কিনতে।আর, এরপিছনে অনেক যৌক্তিক কারণও রয়েছে।যেমন,আমাদের তুলা আমদানি করতেই হয়; আবার প্রোডাক্টের গুনগত মান অক্ষুন্ন রাখতে অনেকক্ষেএে বিশেষ মানসম্পন্ন সুতা, ফেব্রিক, ট্রিমস ও আমদানি করতে হয়। কিন্তুু, যদি দেশেই উন্নত মানের তুলা উৎপাদন সম্ভবপর হয়, তাহলে বাংলাদেশের টেক্সটাইল সেক্টরের ব্যাক-ওয়ার্ড লিঙ্কেজ অনেক শক্তিশালী হবে এবং দেশীয় টেক্সটাইল সেক্টরও কয়েক ধাপ এগিয়ে যাবে।

Writer :
Abir Mohammad Sadi
BUTEX
Sr.Campus Ambassador, BUNON

51 COMMENTS

  1. Сервис помощи студентам 24 АВТОР (24 AUTHOR) – официальный сайт.
    Заказать курсовую
    Работаем с 2012 года. Гарантии, бесплатные доработки, антиплагиат. Заказать диплом (дипломную работу), курсовую, магистерскую или любую другую студенческую работу можно здесь.