22 C
Dhaka
Thursday, December 9, 2021
Home News & Analysis টেক্সটাইল শিল্পে পানি দূষণ | Water Pollution Due To Textile Industry

টেক্সটাইল শিল্পে পানি দূষণ | Water Pollution Due To Textile Industry

পানি দূষণের প্রভাবগুলো সুদূরপ্রসারী। ইউনিসেফ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বব্যাপী তিন জনের মধ্যে একজনের সুপেয় পানি পানের ক্ষমতা নেই এবং জাতিসংঘের প্রতিবেদনে জানা গেছে যে দূষিত পানীয়জনিত রোগের কারণে প্রতিবছর প্রায় দেড় মিলিয়ন লোক মারা যায়।

টেক্সটাইল ডাইং বিশ্বব্যাপী পানির দ্বিতীয় বৃহত্তম দূষণকারী এবং ফ্যাশন শিল্প বিশ্বব্যাপী বর্জ্য পানির ২০ শতাংশ উৎপাদন করে। পোশাক এবং বাড়ির পণ্য উৎপাদন করার ক্ষেত্রে, নির্মাতাদের ব্যাপক পানি ব্যবহার এবং এর ফলে যে নোংরা পানি বের হয় তা পরিবেশকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করে। বাস্তুসংস্থান, প্রাণী, মানুষের খাদ্য শৃঙ্খলা এবং মাটি / ভূগর্ভস্থ পানি দূষণকে প্রভাবিত করে। পানি দূষন আমাদের টেক্সটাইল ইন্ডাস্ট্রিতে একটি বড় সমস্যা। বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক ইন্ডাস্ট্রি পানি দূষন কমাতে কাজ করছে। তো সর্বপ্রথম আমাদের পানি দূষন নিয়ে জানতে হবে।

পানি দূষণ কী?
যখন একটি জলাশয় যেমন হ্রদ, নদী, মহাসাগর ইত্যাদি মানবজাতি বা পরিবেশ দ্বারা দূষণের ফলে বিষাক্ত হয়ে ওঠে তা পানি দূষণ হিসেবে বিবেচিত হয়। এটি রাসায়নিক বা অণুজীবের মতো পদার্থের কারণে হতে পারে।

পানি দূষণ কীভাবে হয়?
কম বেশি আমরা সবাই এই বিষয়ে অবগত আছি যে পানি দূষণের মূলে রয়েছেন মানুষজাতি।
তবে পানি দূষণের উৎসগুলো Point এবং Non-point এ শ্রেণিবদ্ধ করা যেতে পারে।

Point দূষণগুলো সাধারণত একক উৎস থেকে আসে। উদাহরণস্বরূপ আমরা বলতে পারি একটি কারখানা থেকে যে দূষিত পানি নির্গমন হয়।

Non-point দূষণ হয় একাধিক উৎস থেকে। যেমন বৃষ্টি থেকে দূষিত পানি ক্রমাগত ছড়িয়ে পরে।

দূষিত পদার্থগুলো জলাশয়ে শেষ হতে পারে এমন একাধিক উপায় রয়েছে; জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানো থেকে শুরু করে তেল এবং শিল্প বর্জ্য পর্যন্ত।

এখন যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব সেটি হল টেক্সটাইল শিল্পের পানি দূষণ এবং এটি একটি বড় সমস্যা।

২০১৯ সালের একটি হিসাবে অনুযায়ী, বিশ্বব্যাংক জানিয়েছে যে “কিছু গবেষণায় দেখা যায় যে বিশ্বব্যাপী শিল্প পানি দূষণের প্রায় এক পঞ্চমাংশ এর জন্য টেক্সটাইল শিল্প দায়ী।

টেক্সটাইল শিল্প এবং পানি দূষণঃ
পানির ব্যবহার টেক্সটাইল শিল্পের একটি বড় অংশ, এটি স্ক্রোলিং, ব্লিচিং এবং ডাইং প্রক্রিয়াগুলোর জন্য ব্যবহৃত হয়। দূষণের দিকটি মূলত বর্জ্য পানি থেকে আসে। এই দূষিত পানি জলাশয়ে দেওয়ার আগে যদি ট্রিটমেন্ট না করা হয় তবে এই বর্জ্য পানি অক্সিজেনের ঘনত্ব হ্রাস করতে পারে, যা জলজ জীবন এবং সাধারণভাবে জলজ বাস্তুতন্ত্র উভয়ের জন্য ক্ষতিকারক হতে পারে।

আসলে, টেক্সটাইল ডাইং বিশ্বব্যাপী জলের দ্বিতীয় বৃহত্তম দূষণকারী। কিছু টেক্সটাইল পণ্য উৎপাদন এ অন্যদের তুলনায় বেশি পানি অপচয় এবং দূষণের কারণ হতে পারে।
এ দিক হিসেবে আমরা তুলার উদাহরণ দিতে পারি। একটি তুলার তৈরি টি-শার্ট এবং জিন্স উৎপাদন করতে প্রায় ২০,০০০ লিটার পানি লাগে। প্রচলিত তুলা উৎপাদনেও সার এবং কীটনাশকগুলোর উচ্চ ব্যবহার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে, যা তার আশেপাশের জলাশয়গুলিকে দূষিত করতে পারে। প্রকৃতপক্ষে, অন্য কোনও ফসলের তুলনায় তুলা উৎপাদনে বেশি কীটনাশক ব্যবহার করা হয়। যখন অসংখ্য টেক্সটাইল পণ্য তুলা দিয়ে তৈরি করা হয় তখন এর প্রভাব অনেক।

তুলা উৎপাদন এ বার্ষিক বৈশ্বিক পানির ব্যবহারের ২.৬% দায়ী এবং এর উৎপাদনে ব্যবহৃত কীটনাশক, ভেষজনাশক এবং সারের উপর নির্ভরশীল। এরপরেও, বিশ্বব্যাপী কীটনাশক ব্যবহারের পরিমান ২৫% যার মধ্যে তুলা চাষের জন্য ব্যবহৃত হয় ১০%। ফলস্বরূপ, যে ব্যক্তিরা তুলার উৎপাদনে জড়িত তাদের ক্ষতিকারক রাসায়নিকের সংস্পর্শে আসার প্রচণ্ড ঝুঁকির মধ্যে থাকতে হয়। এদিকে, কীটনাশক প্রবাহের কারণে অন্যরাও এক্সপোজারের ঝুঁকিতে পড়তে পারেন।

স্পষ্টতই, পৃথিবীর পানিতে টেক্সটাইল শিল্পের প্রভাব মারাত্মক হতে পারে, তবে সুসংবাদটি হল পরিবেশের উপর এর ক্ষয়ক্ষতি হ্রাস করার উপায় রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে, কয়েকটি বড় বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান পরিবেশের ক্ষতিকারক প্রভাবগুলো কমাতে কাজ করছে।

মানবজীবনে পানি দূষণের প্রভাবঃ
আমরা পানি দূষণের পরিবেশগত ব্যয় নিয়ে আলোচনা করেছি, তবে মানুষের জীবনে এর প্রভাব সম্পর্কে কী বলা যায়? দুঃখজনকভাবে, প্রায় ৩,৫৭৫,০০০ মানুষ পানিসংক্রান্ত রোগে প্রতি বছর মারা যায়। এই সংখ্যার বেশিরভাগই শিশু। টেক্সটাইল শিল্পের দূষিত পানিতে ফর্মালডিহাইড, ক্লোরিন এবং ভারী ধাতব জাতীয় রাসায়নিক থাকতে পারে এবং এই দূষিত পানি যখন পানীয় এবং অন্যান্য কাজের জন্য ব্যবহৃত হলে মানুষ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়।
তবে বর্তমানে অ্যাডিডাস, এইচএন্ডএম, এবং নাইকিসহ বিশ্বের নামিদামী অনেক সংস্থা এখন জলপথে বিষাক্ত পদার্থের প্রভাব করতে কাজ করছে।

সাধারণ মানুষ যেভাবে পানি দূষন কমাতে পারেন?
ভোক্তা হিসাবে, এটি রোধ করার একটি শক্তিশালী উপায় হল আপনার শপিংয়ের অভ্যাসগুলো। ফ্যাশনেবল এবং সস্তা টেক্সটাইলগুলো মজাদার হতে পারে তবে এগুলো পরিবেশ বান্ধব নয়। এসব পণ্য তৈরিতে সাধারণত কম দামী বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করা হয় যা আপনি বাড়িতে ধোয়ার পরে নির্গত হয়ে জলাশয়ের পানি দূষিত করবে।
পানি দূষণ কমাতে কাজ করছে এমন নৈতিক সংস্থাগুলো দ্বারা উৎপাদিত দীর্ঘস্থায়ী এবং উচ্চ-মানের পণ্য কেনার চেষ্টা করুন। তাদের সাথে যোগাযোগ করুন এবং দেখুন যে তারা তাদের বর্জ্য পানির চিকিৎসা করছে কিনা। আপনি দোকানগুলোতে যে টেক্সটাইল পণ্য দেখছেন সেগুলোর ট্যাগ কেনার আগে দ্রুত দেখে নিন পণ্যটি পরিবেশবান্ধব তৈরি কী না? যদি তা না হয় তবে আরও টেকসই অনুরূপ ফেব্রিকের পণ্যটি খুঁজতে গুগল অনুসন্ধান করুন।
আমরা চাইলেই টেক্সটাইল শিল্প থেকে পানি দূষণ রোধ করতে পারি। তবে এটি গুরুত্বপূর্ণ যে বর্তমানে আমরা স্বতন্ত্র এবং কর্পোরেট উভয় পর্যায়েই এটিকে হ্রাস করার লক্ষ্যে কাজ চালিয়ে যাচ্ছি।

পানি দূষণ হ্রাস করার কিছু পদ্ধতিঃ
পলিয়েস্টার এবং সুতির মতো মিশ্রিত ফাইবার দিয়ে তৈরি ফেব্রিক আলাদা করা এখনও সম্ভব নয়, তুলা দিয়ে তৈরি কাপড়গুলোকে কাঁচামাল এ ফেরত আনার জন্য কাজ করতে হবে। টেক্সটাইল পণ্যগুলোর বেপরোয়া ব্যবহার রোধ ও পানির পুনর্ব্যবহার করার মাধ্যমে পরিবেশ দূষন অনেকাংশে কমানো সম্ভব।

অপরিশোধিত পানি, দূষণের একটি বিশাল উৎস। সৌভাগ্যক্রমে, জৈবিক, শারীরিক, রাসায়নিক চারটি পৃথক পদ্ধতির মধ্যে একটি ব্যবহার করে দূষিত পানি পরিশোধন করে পুনরায় ব্যবহার করা সম্ভব। তবে এটি করার জন্য, বিশ্বের সকল সংস্থার একমত হয়ে এগিয়ে আসতে হবে। এছাড়াও পানি দূষন রোধের কিছু পদ্ধতি রয়েছে সেগুলো হলঃ

১।প্রাকৃতিক উৎসের ব্যবহারঃ
প্রাকৃতিক উৎস যেমন উদ্ভিদ বা প্রাণী থেকে তৈরি টেক্সটাইল পরিবেশের উপর কম প্রভাব ফেলতে পারে। কাঁচামাল ছাড়াও, ডাইং পণ্য যা উদ্ভিদ, খনিজ এবং পোকামাকড় থেকে উদ্ভাবিত সেগুলো ব্যবহার করতে হবে। যদি প্রাকৃতিক সাশ্রয়ী না হয়, তবে এমন ডাই সন্ধান করুন যা পরিবেশের উপর কম প্রভাব ফেলবে।
কিছু ডাই রয়েছে যা পরিবেশের জন্য সুরক্ষিত সেগুলো হল প্রাকৃতিক ডাই, বায়োডেগ্রেটেবল ডাই, অ্যাজো-ফ্রি কলারেন্ট এবং ফাইবার রিয়েক্টিভ ডাই।
Keycolour নামক একটি সংস্থা বাংলাদেশে পরিবেশ বান্ধব ডাই তৈরি করছে যা আমাদের জন্য সুখবর।

২।টেক্সটাইল পণ্য উৎপাদনের জন্য সাস্টেইনেবল উপকরণ এর ব্যবহারঃ
সাস্টেইনেবল হল এমন উপাদান যা অল্প সময়ের মধ্যে পুনরুৎপাদন করা যায় এবং পরিবেশ দূষন রোধে সাহায্য করে। সাস্টেইনেবল উৎসগুলোর উদাহরন হিসেবে হেম্প, বাঁশ, জৈব সুতা, Alpaca উল এবং সয় সিল্কের মতো ফাইবার এর কথা বলা যায়। এগুলো উৎপাদনের খুব কম পরিমান কীটনাশক এবং ডাই ব্যবহার করা হয়।

৩।পুনর্ব্যবহারযোগ্য পণ্য তৈরিঃ
পুনর্ব্যবহারের মাধ্যমে কাপড়, লিনেন, তোয়ালে ইত্যাদি পুনরায় ব্যবহার করা যায়। পুনরায় রঙ করা এবং পুনর্গঠন ফেব্রিক এবং টেক্সটাইল উৎপাদন সামগ্রিক প্রয়োজন হ্রাস করতে পারে, যা শেষ পর্যন্ত পরিবেশের উপর শিল্পের প্রভাব হ্রাস করে।

বাংলাদেশি যেসকল প্রতিষ্ঠান যারা পানি দূষনরোধে কাজ করছেঃ
১। অপেক্স এন্ড সিনহা টেক্সটাইল গ্রুপ।
২। কেডিএস টেক্সটাইল মিলস লিঃ
৩। আলিমা টেক্সটাইলস লিঃ
৪। আল্কারাম টেক্সটাইল মিলস লিঃ
৫। ডেক্কো ওয়াশিং লিঃ
৬। ইউনিলিয়েন্স হোম টেক্সটাইল লিঃ
ইত্যাদি।
বাংলাদেশের টেক্সটাইল শিল্পে বর্তমান অ-সম্মতি পরিস্থিতি বুঝতে, প্রাথমিকভাবে ২৩ টি টেক্সটাইল কোম্পানি থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছিল। তো ফলাফল থেকে বোঝা যায় যে পরিবেশগত সুরক্ষা কার্যক্রমে জড়িত কোম্পানিগুলোর সক্রিয়তার অভাব বর্তমান পরিবেশ দূষণের একটি মূল কারণ। তবে বাংলাদেশ সরকার ও অনেক শিল্প প্রতিষ্ঠান পানি দূষন রোধে কাজ করে যাচ্ছে। গবেষকদের মতে ২০৩০ সালের মধ্যে পানি দূষনের পরিমান প্রায় ৭৮% কমানো সম্ভব।

Writer:
Rafiul Islam
SKTEC
Sr. Research Assistant, Bunon

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

” জাতীয় বস্ত্র দিবসে টেক্সটাইল বিষয়ক কুইজের আয়োজন করেছে সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাব”

৪ ডিসেম্বর জাতীয় বস্ত্র দিবস ২০২১ উপলক্ষে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, জোরারগন্জ,চট্টগ্রাম (সিটেক) এর ক্যারিয়ার বিষয়ক ক্লাব "সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাব" কর্তৃক সকল...

লিখিত অনুমোদন পেয়েছে সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের নতুন কমিটি

টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ, জোরারগন্জ, চট্টগ্রাম এর ক্যারিয়ার বিষয়ক ক্লাব " সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাব" এর ২০২১-২২ সেশানের গঠিত নতুন কমিটিকে লিখিত অনুমোদন...

চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে সপ্তাহব্যাপী অল ওভার প্রিন্টিং ওয়েবিনার সম্পন্ন : মূল্যায়ন পরীক্ষা ১৪ নভেম্বর

অল ওভার প্রিন্টিং (All Over Printing) এবং ডিজাইন ডেভেলপমেন্ট (Design Development) এর ওপর চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইন্জিনিয়ারিং কলেজে (সিটেক) AOPTB (All Over...

অধ্যক্ষের সাথে সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের নবগঠিত কমিটির সৌজন্য সাক্ষাত

চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (সিটেক) এর ক্যারিয়ার বিষয়ক সংগঠন সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের ২০২১-২০২২ সেশনের নবগঠিত কমিটির সাথে অত্র কলেজের সম্মানিত অধ্যক্ষ...

LEVIS | Levi Strauss & Co. | ফ্যাশন ব্র্যান্ড লেভিস

Levi Strauss & Co. একটি আমেরিকান পোশাক সংস্থা যা Levi's ব্র্যান্ডের ডেনিম জিন্সের জন্য বিশ্বব্যাপী পরিচিত। ১৮৫৩ সালের মে মাসে এটি...

অনাবিল প্রশান্তির মনোরম পরিবেশে গড়ে উঠেছে ফতুল্লা এপারেল

তৈরী পোশাক শিল্প বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রধান হাতিয়ার। দেশের মোট রফতানি আয়ের  ৮৪% আসে পোশাক খাত থেকে। তাই দিন দিন দেশে...

এলেন ম্যাকআর্থারের ফাউন্ডেশনের ” ডেনিম পন্যের পুনঃব্যবহারযোগ্যতা বৃদ্ধি” উদ্যোগকে অনুপ্রানিত ও ত্বরান্বিত করতে ‘জিন্স রিডিজাইন’ চালু করছে “এইচ এন্ড এম”

এলেন ম্যাকআর্থারের ফাউন্ডেশনের উদ্যোগকেই  অনুপ্রাণিত হয়ে জনপ্রিয় ফ্যাশন ব্র্যান্ড "এইচএন্ডএম " পুরুষদের ডেনিম সংগ্রহ করা শুরু করেছে অক্টোবরের মাঝামাঝি সময়ে এবং...