29 C
Dhaka
Sunday, October 2, 2022
Home News & Analysis Industry News হোম টেক্সটাইলে নতুন বিপ্লবের সম্ভাবনায় বাংলাদেশ

হোম টেক্সটাইলে নতুন বিপ্লবের সম্ভাবনায় বাংলাদেশ

বাংলাদেশের রপ্তানি পণ্য বলতেই সবার আগে চলে আসে তৈরি পোশাক শিল্প। কখনো কখনো পাট, হিমায়িত চিংড়ি, চামড়া রপ্তানি নিয়েও আলোচনা হয়। সরকারের কাছ থেকে নানা ধরনের সুযোগ-সুবিধা পেতে দেন-দরবারও করেন এসব খাতের উদ্যোক্তারা।হোম টেক্সটাইল রপ্তানি করে বিদায়ি অর্থবছরে ১১৩ কোটি ২০ লাখ ৩০ হাজার (১.১৩ বিলিয়ন) ডলার আয় করেছে বাংলাদেশ, যা আগের বছরের চেয়ে ৪৯ দশমিক ১৭ শতাংশ বেশি। এর আগে কখনোই এ খাতের রপ্তানিতে এত বেশি প্রবৃদ্ধি হয়নি। এটি এখন তৃতীয় বৃহত্তম রপ্তানি খাত।

এতদিন পাট, চামড়া ও হিমায়িত মাছ রপ্তানি দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে থাকত। এবার হোম টেক্সটাইল পাট খাতের প্রায় সমান ডলার দেশে এনে তৃতীয় স্থান দখল করেছে।

করোনায় কম-বেশি প্রায় সব খাতের অবস্থা নাজুক। রপ্তানি ছাড়াও স্থানীয় বাজারে চাহিদা কমেছে। এর মধ্যে ব্যতিক্রম হোম টেক্সটাইল। অনেকটা অগোচরে থেকে দেখাচ্ছে আশার আলো।

হোম টেক্সটাইল আসলে কীঃ

হোম টেক্সটাইল বলতে বোঝায় ঘরের অন্দরের শোভাবর্ধক হিসেবে ব্যবহার করা বস্ত্রপণ্য। এ কারণে এ ধরনের পণ্যকে হোমটেক্স বা ঘরোয়া টেক্সটাইলও বলা হয়ে থাকে।

বিছানার চাদর, বালিশ, বালিশের কাভার, টেবিল ক্লথ, পর্দা, ফ্লোর ম্যাট, কার্পেট, জিকজাক গালিচা, ফার্নিচারে ব্যবহার করা ফ্যাব্রিকস, তোশক, পাপস, খাবার টেবিলের রানার, কৃত্রিম ফুল, নকশিকাঁথা, খেলনা, কম্বলের বিকল্প কমফোর্টার, বাথরুম টাওয়েল, রান্নাঘর ও গৃহসজ্জায় ব্যবহার হয় এমন সব ধরনের পণ্য এ খাতের আওতাভুক্ত।

এ শিল্পের প্রধান কাঁচামাল তুলা, পাট, শন, রেশম, ভেড়া-ছাগলের পশম, অন্যান্য পশম। এ ছাড়া সম্প্রতি কৃত্রিম তন্তুর ব্যবহারেরও হোম টেক্সটাইল উৎপাদন হচ্ছে দেশে। দেশে হোম টেক্সটাইল উৎপাদন করে এ রকম উল্লেখযোগ্য বড় প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে অ্যাপেক্স উইভিং অ্যান্ড ফিনিশিং মিলস, নোমান গ্রুপের সহযোগী প্রতিষ্ঠান জাবের অ্যান্ড জোবায়ের ফ্যাব্রিকস, সাদ গ্রুপ, অলটেক্স, এসিএস টেক্সটাইল, জে কে গ্রুপ, ক্লাসিক্যাল হোম, ইউনিলাইন ইত্যাদি।

দীর্ঘদিন শীর্ষ ১০ রপ্তানি খাতের তালিকায় আছে এ খাত। বিশ্বজুড়ে করোনার কারণে বাণিজ্য প্রায় নাস্তানাবুদ। এমন পরিস্থিতিতেও হোম টেক্সটাইলের রপ্তানি বেড়েছে রেকর্ড পরিমাণ।

তৈরি পোশাকের মতো হোম টেক্সটাইলেরও প্রধান গন্তব্য ইউরোপ-আমেরিকা। রপ্তানিকারকরা বলছেন, এই দুই বাজারে এতদিন একচেটিয়া ব্যবসা করত ইসরায়েল, চীন ও ভারত। ইসরায়েল মূলত খুব দামি পণ্য রপ্তানি করে। চীন ও ভারত দামি-মাঝারি দুই ধরনের পণ্যই রপ্তানি করে। আর বাংলাদেশ করে মাঝারি ও কম দামি পণ্য রপ্তানি।

প্রধান বাজার বড় ব্র্যান্ডঃ

বৈশ্বিক হোম টেক্সটাইলের প্রধান বাজার ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও আমেরিকা। মোটের ৬০ শতাংশ ব্যবহার হয় দুই মহাদেশের দেশগুলোতে।

বাংলাদেশের হোম টেক্সটাইলের ৮০ শতাংশ যায় এ দুই বাজারে। বিশ্বখ্যাত ক্যারফোর, ওয়ালমার্ট, আইকিয়া, আলদি, এইচঅ্যান্ডএম, মরিস ফিলিপস, হ্যামার মতো বড় ব্র্যান্ড এখন বাংলাদেশের হোম টেক্সের বড় ক্রেতা। অন্যান্য খুচরা ক্রেতার সংখ্যাও কম নয় বলে জানিয়েছেন রপ্তানিকারকরা।

রপ্তানি খাতের অন্যান্য পণ্যের মতো যুক্তরাষ্ট্র বাদে সব বাজারে শুল্কমুক্ত রপ্তানি সুবিধা পাচ্ছে হোম টেক্সটাইল।

বাজার গবেষণা ও অ্যাডভাইজরি ফার্ম মরডর ইন্টেলিজেন্সের সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, সবচেয়ে বেশি মুনাফা হয় হোম টেক্সটাইল ব্যবসায়। মোট বিশ্ববাজার এখন ১৩১ বিলিয়ন ডলারের। আগামী ২০২৫ সাল নাগাদ এর পরিমাণ ১৮০ বিলিয়ন ডলারে উন্নীত হবে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে প্রতিষ্ঠানের এ প্রতিবেদনে।

প্রধান সমস্যা তুলাঃ

হোম টেক্সটাইল খাতের বড় সম্ভাবনাকে কাজে লাগাতে প্রধান কাঁচামাল তুলার সংকট এখনও বড় প্রতিবন্ধকতা। দেশে তুলা উৎপাদন বলতে গেলে হয় না। প্রায় পুরোটাই আমদানিনির্ভর। বেশির ভাগই ভারত থেকে আমদানি করতে হয়। এ ছাড়া ডাইং কেমিক্যালসহ অন্যান্য রাসায়নিক কাঁচামালের পুরোটা আমদানিনির্ভর।

রপ্তানিকারকদের দাবি, স্থানীয় স্পিনাররা কটনের দাম বাড়ার অজুহাতে দেশে দেশে এক ধরণের কৃত্রিম সংকট তৈরি করে সুতার দাম অস্বাভাবিক বাড়িয়ে দিয়েছে। এ সংকট সমাধানে স্থানীয়ভাবে ব্যাক টু ব্যাক এলসির মাধ্যমে সুতা ক্রয় করা এ খাতের উদ্যোক্তারা শুল্কমুক্ত সুবিধা বিদেশ থেকে সুতা আমদানির অনুমতি চেয়েছেন সরকারের কাছে। এছাড়া গ্যাস সংযোগ সহজেই না পাওয়া কিংবা পেতে বিপুল পরিমাণ বাড়তি টাকা খরচ করা এবং সাম্প্রতি বন্দরে জাহাজ সংকট এ খাতের অগ্রগতির ক্ষেত্রে বড় বাধা হিসেবে দেখা দিয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা।

এসব সংকট সমাধান করা গেলে হোম টেক্সটাইল রপ্তানিতে চলতি অর্থবছরেও বড় প্রবৃদ্ধির আশা দেখছেন রপ্তানিকারকরা।

রিপোটার:
নাজমীন আক্তার শায়লা
বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ টেক্সটাইলস (বুটেক্স)
ক্যাম্পাস অ্যাম্বাসেডর, বুনন

Most Popular

নিটার ও ইপিলিওন গ্রুপের মাঝে সমঝোতা স্মারক সই

ঢাকার সাভারে অবস্থিত ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড রিসার্চ নিটারের সাথে ইপিলিওন গ্রুপের একটি সমঝোতা স্মারক সাক্ষরিত হয়েছে। রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর)...

টেক্সটাইল সেক্টরের বর্তমান অবস্থা, সমস্যা ও সম্ভাবনা: মোহাম্মদ জাহিদুর রহমান

বাংলাদেশের একজন সফল টেক্সটাইল প্রকৌশলী মোহাম্মদ জাহিদুর রহমান। তিনি ১৯৯৭-৯৮ সালের দিকে তৎকালীন কলেজ অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি যার বর্তমান নাম...

নিটারের নব নিযুক্ত অধ্যক্ষ ড. মোহাম্মদ জোনায়েবুর রশীদ

ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড রিসার্চ তথা নিটারের নতুন অধ্যক্ষ হিসেবে যোগদান করেছেন ড. মোহাম্মদ জোনায়েবুর রশীদ। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইলেকট্রিক্যাল...

টেক্সটাইল ম্যানুফ্যাকচারিং শিল্পে “টেকসই উন্নয়ন” শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

৩ জুলাই বিজিএমইএ ইউনিভার্সিটি অফ ফ্যাশন অ্যান্ড টেকনোলজি এর টিইএম (টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট) বিভাগ এর সহযোগিতায় টেক্সটাইল ম্যানুফ্যাকচারিং ইন্ডাস্ট্রিতে টেকসই উন্নয়ন...

অধ্যক্ষের সাথে সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের নবগঠিত কমিটির সৌজন্য সাক্ষাত

চট্টগ্রাম টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ (সিটেক) এর ক্যারিয়ার বিষয়ক সংগঠন সিটেক ক্যারিয়ার ক্লাবের ২০২১-২০২২ সেশনের নবগঠিত কমিটির সাথে অত্র কলেজের সম্মানিত অধ্যক্ষ...

মাশরুম থেকে ফাইবার

ছত্রাক বা মাশরুম থেকে কি ফাইবার তৈরি সম্ভব? হুম সম্ভব। সম্পূর্ণ বায়োডিগ্রেডবল এবং সাসটেইনেবেল ফাইবার মাশরুম থেকে পাওয়া সম্ভব। এটি মূলত...

যত এগিয়ে আসছে বড়দিন ততো অর্ডার বাড়ছে তৈরি পোশাক কারখানাগুলোতে

বাংলাদেশ একটি মধ্যম আয়ের দেশ। করোনা ভাইরাসের কারনে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মত বাংলাদেশের অর্থনীতিতেও বিরুপ প্রভাব পরেছে। আমাদের দেশের অর্থনীতির চালিকাশক্তি...