28 C
Dhaka
Thursday, June 24, 2021
Home Technology Smart Textiles & Nanotechnology যে পোশাকে আপনি হতে পারবেন অদৃশ্য

যে পোশাকে আপনি হতে পারবেন অদৃশ্য

কোথাও চলিয়া যাব একদিন-তারপর রাত্রির আকাশ

অসংখ্য নক্ষত্র নিয়ে ঘুরে যাবে কতকাল জানিব না আমি

—- জীবনানন্দ দাশ

লেখাটি লেখার সময় জীবনানন্দ দাশের “কোথাও চলিয়া যাবো একদিন” কবিতার এই দুইটি লাইন খুব মনে পরে যাচ্ছিল। স্বার্থপরতা এবং জঞ্জালে ভরা এই পৃথিবীতে জীবনের কোন এক মুহূর্তে পাখি হয়ে উড়ে যেতে কিংবা হাওয়ায় মিশে যেতে ইচ্ছে করে না এরকম লোক খুঁজে পাওয়া খুবই দুষ্কর। মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব হলেও কিছু সীমাবদ্ধতা তো থেকেই যায়।
কিন্তু কেমন হতো আপনার কাছে একটি পোশাক বা চাদর আছে যা পরিধান করার সাথে সাথে আপনি হাওয়ায় মিশে যাচ্ছেন?

আপনাকে খুঁজে পাচ্ছে না এই স্বার্থের পৃথিবীর কোন ব্যক্তি কিংবা আপনাকে দেখতে পাচ্ছে না আপনার কথায় কথায় ভুল ধরা খিটখিটে মেজাজের আপনার সেই অফিসের বস।
আপনি হয়তো মনে মনে বলছেন এরকম একটি পোশাক বা চাদর থাকলে তো ভালোই হয় কিন্তু আদৌও কি এরকম পোশাক বা চাদর সম্ভব ?

হ্যাঁ! সম্ভব।
একটি পোশাক বা চাদরের মাধ্যমে মানুষ কিভাবে অদৃশ্য হয়ে যায় সেটা জানতে হলে, আমাদের আগে বুঝতে হবে মানুষ কিভাবে একটি বস্তুকে চোখে দেখতে পায়।

প্রকৃতিতে বিদ্যমান যখন কোন বস্তুর উপর আলো আপতিত হয় তা থেকে দৃশ্যমান আলোকরশ্মি নির্গত হয় যা সরাসরি প্রতিফলিত হয়ে আমাদের চোখের রেটিনাতে আসে তারপরেই আমরা কোন বস্তুকে চোখে দেখতে পাই।বলে রাখা ভালো আলো সবসময় সরল রেখায় প্রতিফলিত হয়ে আমাদের চোখে আসে।

ইতিমধ্যেই আপনি হয়তো বিজ্ঞানীরা কিভাবে এই অদৃশ্য পোশাক তৈরি করবে তার লজিক ধরে ফেলেছেন।

ঠিক ধরেছেন।
ব্যাপারটা একদম তাই! সহজ সমীকরণ। কোনভাবে যদি বস্তু থেকে আলোক রশ্মি নির্গত না হয় বা আলোক রশ্মির দিক যদি পরিবর্তন করা যায় তাহলে আমরা ওই বস্তুটাকে আর চোখে দেখতে পাবো না।

আমেরিকার University of Californian একদল বিজ্ঞানী উদ্ভাবন করেছেন –
Ultra-thin invisibility “skin” cloak (চাদর) যা মানুষের অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার কাল্পনিক ইচ্ছাকে অনেকটাই বাস্তবে পরিণত করতে পারবে।

Ultra-thin invisibility “skin” cloak (চাদর) তৈরি হয় ultrathin layer of nanoantennasa (gold block) একত্রিত করে যা 80 nanometres in thickness বা পাতলা হয়ে থাকে। invisible cloak বা চাদরে থাকা অসংখ্য ক্ষুদ্র (Gold blocks) meta-engineered এর মাধ্যমে বস্তু থেকে নির্গত আলোকরশ্মির দিক পরিবর্তন করে দিতে পারে। যার ফলে একটি বস্তু সহজেই অদৃশ্য হয়ে যায়। কারণ প্রাকৃতিক সাধারণ নিয়মে আলো সবসময় সরল রেখায় প্রতিফলিত হয়ে আমাদের চোখে আসে। meta-engineered এমন প্রক্রিয়া – আলোকরশ্মি যখন এক মাধ্যম থেকে অন্য আরেকটি মাধ্যমে প্রবেশ করে প্রতিসরণের ফলে আলোক রশ্মির দিক পরিবর্তিত হয়। এই প্রতিসরণ কতটুকু হবে তা নির্ভর করে মাধ্যমের প্রতিসরণাঙ্কের উপর। প্রতিসরণাঙ্কের মান প্রাকৃতিক ভাবে সবসময় ধনাত্নক হয়ে থাকে কিন্তু meta-engineered প্রক্রিয়াতে আলোক রশ্মির প্রতিসরণাঙ্কের মান ঋণাত্মক করা সম্ভব।

বই পুস্তকের কঠিন ভাষা বাদ দিয়ে ব্যাপারটা একটু সহজ ভাবে বুঝা যাক।

আপনাদের মধ্যে যারা কোচ দিয়ে মাছ শিকারে পারদর্শী তাদের কাছে ঘটনাটি বেশ পরিচিত। পানিতে মাছ যেখানে দেখা যায় প্রকৃতপক্ষে মাছ কিন্তু সেখানে থাকে না থাকে তার থেকে একটু উপরে বা দুরে এর কারণ আলোর প্রতিসরণ। আলো হালকা মাধ্যম (বায়ু) থেকে যখন ঘন মাধ্যমে (পানি) আপতিত হয় তখন আলো প্রাকৃতিক ভাবে প্রতিসারিত হয়ে দিক পরিবর্তন করে কিন্তু তখন আলোর ধনাত্মক প্রতিসারণ হয়ে থাকে। কিন্তু invisibility cloak বা চাদর থাকায় অসংখ্য microscopic gold block আলোর ঋনাত্মক প্রতিসারণ ঘটাতে পারে। মাছের গায়ে যদি invisibility cloak বা চাদর থাকে, আপনি হয়তো মাছকে আর দেখতেই পারবেন না।

2006 সালে ডিউক ইউনিভার্সিটির একদল গবেষক meta উপাদান তৈরি করেছিলেন যা শুধুমাত্র মাইক্রোয়েভ তরঙ্গের(আলোক তরঙ্গের মতোই,তবে অদৃশ্য তরঙ্গ) জন্য কার্যকর ছিল এবং পোশাক বানানোর অনুপযোগী ছিল।

কিন্তু University of Californian দ্বারা তৈরি Ultra-thin invisibility “skin” cloak (চাদর) দৃশ্যমান আলোকে রশ্মিতে কার্যকর এবং যা থেকে পোশাক বানানো সম্ভব।
বিজ্ঞানী xiang zhang বলেন- “ This is the first time a 3D object of arbitrary shape has been cloaked from visible light and Our ultra-thin cloak now looks like a coat. It is easy to design and implement, and is potentially scalable for hiding macroscopic objects”
Ultra-thin invisibility “skin” cloak (চাদর) মানুষের বহুদিনের অদৃশ্য হয়ে যাওয়ার কাল্পনিক ইচ্ছাকে যে বাস্তবে রুপ দিতে যাচ্ছে তা বলা যেতেই পারে।

Ultra-thin invisibility “skin” cloak (চাদর) বা পোশাকের সব থেকে বেশি ব্যবহার লক্ষ্য করা যাবে প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে ইতিমধ্যেই যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাজ্য এবং কানাডার বিভিন্ন কোম্পানি সৈনিক দের জন্য অদৃশ্য পোশাক তৈরি করা শুরু করেছে । ঠিক এই একই meta-engineered প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন যুদ্ধ জাহাজ এবং যুদ্ধ বিমান রাডার ফাঁকি দিয়ে থাকে।

পরিশেষে বলা যায় আপনার আমার চিন্তা ধারা যেখানে শেষ হয় বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রা ঠিক সেখান থেকেই শুরু হয়। অদূর ভবিষ্যতে যদি দেখেন একটা পোশাক পরে মানুষ অদৃশ্য হয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে আর আপনি তাতে দেখতে পাচ্ছেন না। তাতে অবাক হওয়ার কারণ নাই।

Writer:
Mahamudul Hasan Munna
BUFT
Research Assistant, Bunon

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular

প্লাস্টিক বোতল থেকে ফ্যাব্রিক

প্লাস্টিক‌ বোতল থেকে ফ্যাব্রিক? এও কি সম্ভব। হ্যা। ঠিকই শুনছেন। প্লাস্টিক বোতল পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের মাধ্যমেও সম্পূর্ণ সাসটেইনেবল বা টেকসই ফাইবার পাওয়া সম্ভব।...

টেলিভিশন বিতর্ক প্রতিযোগিতায় আবারো ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ

আগামী ২৬ জুন ২০২১, শনিবার সকাল ১০:০০ টায় রাজধানীর তেজগাঁওস্থ বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশনে (এফডিসি) ‘প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর সামাজিক সুরক্ষায় প্রস্তাবিত বাজেট...

কেয়ার লেবেলে আধুনিকতার ছোয়া

কেয়ার লেবেল হচ্ছে তৈরিকৃত গার্মেন্টসের একটি অংশ,যেখানে ভোক্তাদের উদ্দেশ্য গার্মেন্টস এর কেয়ার সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য দেয়া থাকে। যুগের সাথে তাল মিলিয়ে...

যুক্তরাজ্যের বৃহত্তম পণ্য সরবরাহকারী হিসাবে জার্মানিকে ছাড়িয়ে গেলো চীন

UK এর Office for National Statistics (ONS) থেকে জানা যায় যে, ২০১৯ সালে যখন জার্মানি থেকে UK এর আমদানি কমে গেলো...

নোয়াখালী টেক্সটাইলের নবনিযুক্ত অধ্যক্ষ, সাইফুর রহমান – বুননের পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা অভিনন্দন

গত ১৩ জানুয়ারী পাট ও বস্ত্র মন্ত্রণালয়ের উপসচিব মোঃ মিজানুর রহমান স্বাক্ষরিত এক অধ্যাদেশের মাধ্যমে ইঞ্জিনিয়ার মোঃ সাইফুর রহমান কে টেক্সটাইল...

গালিচার(কার্পেট) একাল-সেকাল | Past & Present of Carpet

Red carpet welcome বা লাল গালিচার সর্ম্বধনা কথাটি শুনলে মনের পর্দায় ভেসে উঠে রাজা - বাদশা, মন্ত্রি ও গন্যমান্য ব্যক্তি ও...

টেক্সটাইল শিল্পে পানি দূষণ | Water Pollution Due To Textile Industry

পানি দূষণের প্রভাবগুলো সুদূরপ্রসারী। ইউনিসেফ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, বিশ্বব্যাপী তিন জনের মধ্যে একজনের সুপেয় পানি পানের ক্ষমতা নেই এবং...