18 C
Dhaka
Thursday, February 2, 2023
HomeTechnologyDyeing & Printingত্রি-মাত্রিক পৃথিবীর কল্পনা ও বাস্তবতার যোগসূত্র যখন 3D প্রিন্টিং এবং টেক্সটাইল সেক্টরের...

ত্রি-মাত্রিক পৃথিবীর কল্পনা ও বাস্তবতার যোগসূত্র যখন 3D প্রিন্টিং এবং টেক্সটাইল সেক্টরের জয়যাত্রা

3D প্রিন্টিং তথা তিন মাত্রার মুদ্রণ প্রযুক্তি মানব সভ্যতার উৎকর্ষের ইতিহাসের অন্যতম একটি সোপান। আমাদের সামনে যে ৪র্থ শিল্প বিপ্লব ঘটছে তার একটি স্তম্ভ বলা হয় এই 3D প্রিন্টিং কে। মানব মস্তিষ্ক যে ধরণেরই তাৎক্ষণিক বস্তু কল্পনা করতে পারে, ঠিক অবিকল সেরকম বস্তুকে অস্তিত্ব দেওয়া সম্ভব হয় এই 3D প্রিন্টিং বা ত্রি-মাত্রিক মুদ্রণের মাধ্যমে। কেন এই 3D প্রিন্টিং বর্তমানে এক বিশেষ ইন্দ্রিয়গ্রাহ্য বিষয়? চলুন জেনে নিই।

বর্তমানে ২০২১ সালে আমরা আমাদের পছন্দমত ঘরের বিভিন্ন আসবাবপত্র, খাবারের পাত্র, বিভিন্ন নান্দনিক কল্পনাকে বাস্তবে রূপ দিতে পারছি শুধুমাত্র একটি 3D প্রিন্টিং মেশিনের সাহায্যে। যা ১৯০০ শতকে কেউ কল্পনাও করতে পারত না। এমনকি 3D প্রিন্টিং টেকনোলজি এখন কমার্শিয়ালি প্রচুর ব্যবহার হচ্ছে নতুন নতুন বিজনেস প্রোডাক্ট বাজারে আনার জন্য। ২০২০ সালে গ্লোবাল 3D প্রিন্টিং এর শেয়ার বাজারের মূল্য ছিল ১৩.৭৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার যা ২০২৮ সালে ২১ শতাংশ হারে বৃদ্ধি পাবে এবং ৪১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

3D প্রিন্টিং এর কিছু বিশেষ প্রয়োগ ইতোমধ্যে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে সেগুলো নিচে আলোচনা করা হলোঃ-

  • ন্যানো স্কেলে কণার বস্তুধর্মে পরিবর্তন এনে বড় আকারের বিশেষ গুণ সম্পন্ন ডিভাইস তৈরি করা হচ্ছে 3D প্রিন্টিং এর মাধ্যমে। যেমনঃ- Li-CO2 ব্যাটারি তে 3D প্রিন্টেড গ্র‍্যাফেইন অক্সাইডের ফ্রেম ওয়ার্ক। 
  • U.S বেস্ড কনস্ট্রাকশন টেকনোলজি কোম্পানি ‘ICON’ ইতোমধ্যে 3D প্রিন্টিং রোবটিক্স ব্যবহার করে পৃথিবীর বিভিন্ন দরিদ্র প্রান্তে বসতবাড়ি তৈরির প্রকল্প নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। 
  • মঙ্গলগ্রহে মানবজাতির কলোনাইজেশন এর যে মিশনটি এলন মাস্ক ঘোষণা করেছেন তাতেও 3D প্রিন্টিং এর বিশাল অবদান রয়েছে। অবাক করা একটি তথ্য হলো, মঙ্গল গ্রহে যাত্রা এবং সেখানে বসবাসের জন্য নভোচারীর যে দৈহিক পুষ্টি দরকার তা উপযুক্ত খাদ্যকণা থেকে 3D প্রিন্টেড রূপে আনার গবেষণা চলছে। কারণ মঙ্গল গ্রহে পৌঁছাতে নভোযানের সময় লাগে ৩২ মাস। সেখানে পৌঁছনোর সময় + অবস্থানের সময় + ফিরে আসার সময়, এত বেশি সময়ের পুষ্টিচাহিদা সমতুল্য খাবার নভোযানের সীমিত জায়গায় যাতে আরো কার্যকরভাবে নেওয়া যায় সেজন্যই 3D প্রিন্টেড ফুড নিয়ে গবেষণা চলছে এমনকি 3D প্রিন্টেড মেডিসিন নিয়ে বিজ্ঞানীরা গবেষণা করছেন। 3D প্রিন্টেড মেডিসিন মঙ্গল গ্রহে মানবজাতির মিশন সফল করবে বলে আশা করা হচ্ছে।
  • জনপ্রিয় মোটর কোম্পানি FORD তাদের বিশেষ SHELBY GT-500 মডেলের গাড়িতে ডিজিটাল লাইট সিন্থেসিস(DLS) প্রক্রিয়ায় 3D প্রিন্টিং এর মাধ্যমে পার্কিং ব্রেক সিস্টেম এর পরিবর্তন এনেছে। এছাড়াও BMW,  Volkswagen কোম্পানি ও তাদের ইন্ডাস্ট্রির আয় বৃদ্ধি ও পরিবেশবান্ধব যন্ত্রাংশ তৈরিতে 3D প্রিন্টিং টেকনোলজি ব্যবহার করছে। NASA রকেট এর বিভিন্ন অংশ তৈরিতে সাধারণ প্রক্রিয়াকরণের  3D প্রিন্টিং কে বেশি গুরুত্ব দিয়েছে।

3D প্রিন্টিং মেশিন এর কার্যনীতি:-

একটি 3D প্রিন্টার মেশিন ৩টি বেসিক ধাপে 3D প্রিন্ট করে থাকে। 

এই তিনটি ধাপ ব্যবহার করে আমি বা আপনি মাথায় আসা যেকোনো ত্রি-মাত্রিক স্ট্রাকচারের বস্তু, প্রয়োজনীয় জিনিস নিমিষেই বানিয়ে ফেলতে পারি তবে এর জন্য অবশ্যই 3D প্রিন্টারের প্রয়োজন। ধাপগুলো নিয়ে একটু আলোচনা করা যাক।

3D প্রযুক্তি ব্যবহারে ইন্ডাস্ট্রির স্বার্থ:-  প্রত্যেকটি প্রস্তুতকারী ইন্ডাস্ট্রির মূল লক্ষ্য থাকে কাস্টোমারদের ভালো কোয়ালিটি প্রদানপূর্বক বেশি আয় এর পাশাপাশি পরিবেশ দূষণমুক্ত রেখে পরিবেশবান্ধব উপায়ে যন্ত্রকারখানা পরিচালনা করা। আবার দৈনন্দিন উৎপাদন ব্যয় কমিয়ে আনা এবং বর্জ্য পরিশোধন করে তা আবার উৎপাদনে ব্যবহার করা। এই লক্ষ্যগুলো পূরণের অন্যতম একটি উপায় হয়ে দাঁড়িয়েছে 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তি কারণ 3D প্রিন্টিংয়ে বর্জ্য পদার্থ নিষ্কাশন নেই বললেই চলে, প্রোডাক্ট তৈরি পুরোটা মেশিন নির্ভর। যেখানে যতটুকু প্রয়োজন ততটুকুই ম্যাটেরিয়াল ব্যবহার করা হয়। এক চুল পরিমাণ কম বা বেশি অপচয় নেই। বর্তমানের সাধারণ প্রস্তুত কার্যে বিভিন্ন ধাপ থাকে সংখ্যাগুরু দক্ষ কর্মীর প্রয়োজন হয় কিন্তু 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তিতে তুলনামূলক কম ধাপ এবং সংখ্যালঘু দক্ষ কর্মী দ্বারা নির্ভেজাল উপায়ে কাঙ্খিত বস্তু তৈরি করা যায়। এই কারণগুলোর জন্য বর্তমান ইন্ডাস্ট্রিগুলো 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তিকে সাদরে বরণ করে নিচ্ছে।

টেক্সটাইল জগতে 3D প্রিন্টিং :-  বায়োমেডিকেল, মোটরযান, নভোযান এ ব্যবহারের পাশাপাশি 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তির একটি যুগান্তকারী শাখা হলো টেক্সটাইল সেক্টর। টেক্সটাইল সেক্টরে ফাইবারের নমনীয়তা, দৃঢ়তাজনিত সীমাবদ্ধতা থাকার কারণে 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তি নিয়ে গবেষণা চলছে । তবুও টেক্সটাইল সেক্টরে ক্ষুদ্র টেক্সটাইল পণ্য হিসেবে 3D প্রিন্টেড অংশ এবং টেক্সটাইল ফাইবার দ্বারা তৈরি অংশের যৌথ সংযোজনের কাজ চলছে। তবে টেক্সটাইল এর তুলনায় ফুটওয়্যারের উপাদান পলিমার হিসেবে Polyester বহুল ব্যবহৃত হওয়ায়  ফুটওয়্যারে তুলনামূলকভাবে 3D  প্রিন্টিং প্রযুক্তির ব্যবহার করা সহজ হয়। তবে প্রতিরক্ষামূলক টেক্সটাইল সেক্টরে শল্যচিকিৎসার টেক্সটাইল সেক্টরে 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তি ব্যবহার শুরু হয়েছে। প্রতিরক্ষা ডিফেন্স সিস্টেম এ বুলেট প্রুফ জ্যাকেট তৈরিতে 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে যেটার মাধ্যমে বিভিন্ন সলিড মেটাল কে 3D প্রিন্টার এর মাধ্যমে অতি সূক্ষ্ম নজেল বা সুঁই দ্বারা 3D প্রিন্টিং করে বুলেট প্রুফ জ্যাকেট এর রূপ দান করা হচ্ছে।

টেক্সটাইল জগতে আমাদের পূর্বের টেক্সটাইল ফাইবার ব্যবহার করে যে ফেব্রিক তৈরি করা হতো সেগুলোর আদলে 3D প্রিন্টেড যে ফেব্রিক তৈরি করা হয় সেগুলো পরিধানের জন্য তুলনামূলকভাবে কষ্টদায়ক। বেশিরভাগ 3D প্রিন্টেড ফেব্রিক মূলত পলিস্টার দিয়ে তৈরি হয়, যেগুলো সাধারণত আমাদের পরিধানের যোগ্য নয়। তবে অবাক করা তথ্য হলো অনেক ফ্যাশন ডিজাইনার ইতোমধ্যে 3D প্রিন্টেড পোশাক উদ্ভাবন করেছেন সেগুলো নিয়ে অনেক বিতর্ক ঘটেছে এবং এগুলো আমাদেরকে স্টাইলিশ জগতে 3D প্রিন্টিং প্রযুক্তি ব্যবহারে আরো আগ্রহী করে তুলেছে।

একবার ভাবুন তো কেমন হবে যদি আপনি যেমনটি চান তেমনভাবে আপনার পোশাক নিজেই ডিজাইন করে 3D প্রিন্টিং এর মাধ্যমে প্রিন্ট করে নিজের পরিধান করতে পারেন। আমরা হয়তো সেই চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এর দিকে এগিয়ে যাচ্ছি যখন এটা সম্ভব হবে।

আমরা যে টেক্সটাইলের সাথে জড়িত সেটা মূলত দুটি টেক্সটাইল, কারণ নিটিং, উইভিং করে আমরা যে টেক্সটাইল ফেব্রিক পাই তা পরিধানযোগ্য অ্যাপারেলে রূপ দেই। আমরা শৈল্পিক মনোবৃত্তির প্রয়োগ করে পোশাকটি আকর্ষণীয় করে তুলি কিন্তু কেমন হবে যদি আমরা টেক্সটাইল পণ্য টি 2D হিসেবে না পেয়ে সরাসরি 3D হিসেবে পাই। এরকম প্রশ্নের উদ্বেগ ঘটে কারণ 2D টেক্সটাইলের নির্মাণে অনেকগুলো ধাপ, অনেক দক্ষ কর্মী অনেক যন্ত্র প্রয়োজন হয় কিন্তু যদি এটি আমরা 3D প্রিন্টিং এর মাধ্যমেই করতে পারি আমাদের উৎপাদন ব্যয় কমে আসবে এবং খুব সহজেই আমরা আমাদের পছন্দমত প্রত্যেকের শৈল্পিক মনোবৃত্তি অনুযায়ী পোশাক পরিধান করতে পারব।

Writer:
Sorup Kumar Dey 
Research Assistant, Bunon
Bangladesh University of Textiles
- Advertisment -

Most Popular

Garments Sample | গার্মেন্টস স্যাম্পল এবং তার প্রকারভেদ – মার্চেন্ডাইজারের ডায়েরি

মার্চেন্ডাইজিং এ যেই শব্দটা সবচেয়ে বেশিবার শুনবেন তা হচ্ছে Sample। কারণে অকারণে ইচ্ছায় অনিচ্ছায় আপনার চারপাশে এই শব্দটাই সারাক্ষণ ঘুরবে আর তার সাথে সাথে...

ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ডিবেটিং ক্লাব আয়োজন করলো আন্ত-বিভাগ বিতর্ক প্রতিযোগিতা

যেখানে ভিন্নমত পোষণের সুযোগ নেই সেখানে গনতান্ত্রিক পরিবেশ নেই। তাই গনতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরী করতে হলে হবে অনেক তর্ক, ভিন্নমত আর বাকযুদ্ধ যা গনতন্ত্রের প্রান।...

কোভিড – ১৯ শনাক্তকারী মাস্ক

করোনা ভাইরাস মহামারী বিশ্বজুড়ে সর্বনাশা ছড়িয়ে দিয়েছে এবং বেশিরভাগ দেশেই ভ্যাকসিন দেওয়ার প্রচারণা শুরু হলেও, ভাইরাস এর বৈশিষ্ট্যের পরিবর্তনের আশঙ্কা এখনও রয়েছে। এর মধ্যেই...